• শুক্রবার   ২৭ মে ২০২২ ||

  • জ্যৈষ্ঠ ১৩ ১৪২৯

  • || ২৪ শাওয়াল ১৪৪৩

Find us in facebook
সর্বশেষ:
খাদ্য নিরাপত্তা নিশ্চিত করে অর্থনীতিকে গতিশীল রেখেছে সরকার- প্রধানমন্ত্রী মরণোত্তর দ্যাগ হ্যামারশোল্ড মেডেল পেলেন ২ বাংলাদেশি নীলফামারীতে দুস্থ ও মেধাবী শিক্ষার্থীদের মাঝে বাইসাইকেল বিতরণ লিচুকে ঘিরে দিনাজপুরে দৈনিক ১০ কোটি টাকার লেনদেন ‘গুপ্তধন পেতে জিনের বাদশাহকে ৮ লাখ টাকা দিয়েছি’

তারাগঞ্জে সম্পত্তির জন্য বাবার মরদেহ আটকে রাখলেন সন্তানরা! 

– দৈনিক রংপুর নিউজ ডেস্ক –

প্রকাশিত: ১১ ফেব্রুয়ারি ২০২২  

Find us in facebook

Find us in facebook

রংপুরের তারাগঞ্জে সহিদার রহমান প্রামাণিক (৬৫) নামে এক ব্যক্তির মৃত্যুর পর তার সন্তানরা দাফনে বাধা দিয়েছেন। পরে দিনভর নাটকীয়তা শেষে মৃত্যুর ২৯ ঘণ্টা পর তার মরদেহ দাফন করা হয়। গতকাল বৃহস্পতিবার (১০ ফেব্রুয়ারি) সন্ধ্যায় বিষয়টি নিশ্চিত করেন ইউপি সদস্য রবিউল ইসলাম। এর আগে গত মঙ্গলবার রাত ১০টার দিকে উপজেলার প্রামাণিকপাড়া গ্রামে সহিদার রহমান মারা যান।

স্থানীয়রা জানান, সহিদার রহমানের মৃত্যুর পরদিন বুধবার সকালে পারিবারিক কবরস্থানে সহিদার রহমানের দাফনের জন্য কবর খনন করা হয়। দুপুর ২টায় জানাজার জন্য নিকটবর্তী ওকড়াবাড়ি ফারুকিয়া আলিম মাদরাসা মাঠে তার মরদেহ নেওয়া হয়। সবাই যখন জড়ো হয়ে জানাজার প্রস্তুতি নিচ্ছিলেন, তখন ছুটে এসে সহিদারের জানাজা ও দাফনে বাধা দেন প্রথম ও দ্বিতীয় স্ত্রীর সন্তানরা।

তাদের অভিযোগ, সহিদার রহমান প্রামাণিক জীবদ্দশায় তিনটি বিয়ে করেন। তার মধ্যে প্রথম দুই স্ত্রীকে তালাক দিয়ে তৃতীয় স্ত্রীর সঙ্গে থাকতেন তিনি। তিন সংসারে তার সাত সন্তান রয়েছে। তবে সহিদার প্রথম দুই স্ত্রীর তিন সন্তানের খোঁজ-খবর নিতেন না। তাই তারা সম্পত্তির ভাগের দাবি জানান।

দিনভর নানা নাটকীয়তার পর সমঝোতা না হওয়ায় প্রথম দুই স্ত্রীর সন্তানরা চলে যান। পরে রাত সাড়ে ৩টার দিকে কয়েকজন আত্মীয়কে নিয়ে তার মরদেহ দাফন করেন তৃতীয় স্ত্রীর সন্তানরা।

ইউপি সদস্য রবিউল ইসলাম বলেন, মৃত সহিদারের স্ত্রী ও সন্তানদের সঙ্গে বারবার সমঝোতা করার চেষ্টা করে ব্যর্থ হয়েছি। রাত সাড়ে ৩টার দিকে মরদেহ দাফন করা হয়।

Place your advertisement here
Place your advertisement here