• বুধবার   ০৭ ডিসেম্বর ২০২২ ||

  • অগ্রাহায়ণ ২২ ১৪২৯

  • || ১১ জমাদিউল আউয়াল ১৪৪৪

Find us in facebook

ট্রেনে মার্কিন ডলারসহ কুড়িয়ে পাওয়া লাখ টাকা ফিরিয়ে দিলেন যাত্রী

– দৈনিক রংপুর নিউজ ডেস্ক –

প্রকাশিত: ২৪ সেপ্টেম্বর ২০২২  

Find us in facebook

Find us in facebook

নীলফামারীর ডোমারের চিলাহাটি স্টেশনে ট্রেনে এক যাত্রীর হারানো একটি ব্যাগ পেয়ে ফিরিয়ে দিয়েছেন হারুন অর রশীদ নামে এক যাত্রী। ব্যাগে নগদ ১ লাখ ১০ হাজার টাকা, মার্কিন ডলার, সিংগাপুর ডলার, মালয়েশিয়ান রিংগেট, হাত ঘড়ি ও মোবাইল ফোনসহ অনেক কিছুই ছিল। 

শনিবার (২৪ সেপ্টেম্বর) বিকেল ৪টার দিকে সত্যতা যাচাই করে প্রকৃত মালিক তৌছিখার কাছে হস্তান্তর করেন চিলাহাটি স্টেশন মাস্টার নাজনিন বেগম। 

এর আগে দুপুরে রাজশাহী থেকে চিলাহাটিগামী তিতুমীর এক্সপ্রেস ট্রেনে ব্যাগটি কুড়িয়ে পান যাত্রী হারুন অর রশীদ। পরে ওই ট্রেনের গার্ড ফারুক আহমেদসহ ব্যাগটি স্টেশন মাস্টারের কাছে হস্তান্তর করেন তিনি।

যাত্রী হারুন অর রশিদ চিলাহাটির স্থায়ী বাসিন্দা। ব্যাগটির মালিক তৌছিখা সৈয়দপুরের বাসিন্দা। তিনি চিলাহাটিতে বাবা বাড়িতে ঘুরতে এসেছিলেন বলে জানা গেছে।

চিলাহাটি স্টেশন মাস্টার নাজনিন বেগম বলেন, দুপুর আড়াইটার দিকের ঘটনা, ট্রেন ছাড়ার পূর্ব মুহূর্ত। গার্ড ফারুক ভাই ও এক যাত্রী হারুন অর রশীদসহ এসে ব্যাগটি আমার কাছে দেন। পরে আমি সবার সামনেই ব্যাগটি খুলে নগদ এক লাখ ১০ হাজার টাকা,  মার্কিন ডলার, সিংগাপুর ডলার, মালয়েশিয়ান রিংগেট, হাত ঘড়ি, একটি স্যামসাং মোবাইল ফোন ও অনান্য জিনিস কি কি ছিল তা দেখি। মোবাইল ফোনটি আমার কাছে রেখে সব আবার ব্যাগে রাখি। প্রায় ২ ঘণ্টা পরে মোবাইলে কল আসে। পরে তারা এখানে এসে নিজের হাতের ছাপ দিয়ে মোবাইলটি খুলে এবং অন্যান্য জিনিসের সত্যতা যাচাই করার পর তা হস্তান্তর করা হয়।

যাত্রী হারুন অর রশীদ বলেন, আমি ট্রেন থেকে নামার আগে সব কিছু দেখে নিচ্ছিলাম যে কোনো কিছু ছাড়লাম কিনা। পাশেই ব্যাগটি দেখতে পাই। পরে গার্ডকে ডাকি। উনিসহ ব্যাগটি স্টেশন মাস্টারের কাছে হস্তান্তর করি। এরপর বিকেলে ব্যাগটি প্রকৃত মালিকের কাছে দেওয়া হয়েছে। ব্যাগটি না পেলে হয়তো উনাদের অনেক বেশি ক্ষতি হতো। কারণ, অনেক মূল্যবান কিছু ছিল ব্যাগটিতে এবং তা ফিরিয়ে দিতে পেয়ে অনেক ভালো লাগছে।

তৌছিখা বেগমের বলেন, ব্যাগটিতে আমাদের অনেক মূল্যবান জিনিস ছিল। ডেবিট কার্ড, ডলার, নগদ টাকা মোবাইল সব ছিল। আমার বেবি হওয়ার পর প্রথম বাবার বাড়িতে এসেছি। সবার আনন্দ উল্লাসে ব্যাগের কথা মাথায় ছিল না। দুই ঘণ্টা পরে আমরা অনুভব করি ব্যাগ নাই। ভাবছিলাম ফিরে পাব না। তবে পৃথিবীতে এখনো যে ভালো মানুষ আছে এটা তার দৃষ্টান্ত উদাহরণ। উনাকে ধন্যবাদ দিয়ে ছোট করতে চাই না। দোয়া রইল উনার প্রতি।

Place your advertisement here
Place your advertisement here