• বুধবার   ২২ সেপ্টেম্বর ২০২১ ||

  • আশ্বিন ৭ ১৪২৮

  • || ১৩ সফর ১৪৪৩

Find us in facebook
সর্বশেষ:
জলবায়ু ইস্যুতে বিশ্বনেতাদের জোরালো পদক্ষেপ চান প্রধানমন্ত্রী লিঙ্গ সমতা নিশ্চিতে বিশ্বনেতাদের সামনে প্রধানমন্ত্রীর ৩ প্রস্তাব পীরগঞ্জে পর্নোগ্রাফির আলামতসহ ওয়ারেন্টভুক্ত ৮ আসামি গ্রেপ্তার লাশের পকেটে চিরকুট, ছিল মোবাইল নম্বর রংপুরে কিস্তির চাপে ব্যবসায়ীর আত্মহত্যা

খুলেছে স্কুল, শিশুর যেসব বিষয়ে খেয়াল রাখা জরুরি

– দৈনিক রংপুর নিউজ ডেস্ক –

প্রকাশিত: ১৫ সেপ্টেম্বর ২০২১  

Find us in facebook

Find us in facebook

করোনা মহামারির কারণে দীর্ঘদিন বন্ধ ছিল স্কুল। অবশেষে খুলেছে স্কুল। আবারো মুখরিত হয়ে উঠেছে স্কুলের বন্ধ থাকা ক্লাসরুম গুলো। ৫৪৩ দিন অর্থাৎ প্রায় দেড় বছর বন্ধ থাকার পর রোববার থেকে দেশের শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলো খুলেছে। তবে স্বাস্থ্যবিধি মেনেই ক্লাস শুরু করেছে ছাত্র-ছাত্রীরা। যদিও দেশে করোনা আক্রান্তের হার কমছে। তারপরও ভয় তো রয়েই গেছে।

করোনার কারণে আতঙ্কে রয়েছেন অভিভাবকরা। বর্তমান পরিস্থিতিতে শিশুদের স্কুল পাঠানো নিয়ে তাদের মনে চিন্তার ছাপ। যদিও শিশুদের করোনায় আক্রান্ত হওয়ার আশঙ্কা খুবই কম। তবুও তাদের স্বাস্থ্য বা সুরক্ষার দিকে নজর রাখা জরুরি। চলুন তবে জেনে নেয়া যাক এই বিষয়ে কিছু পরামর্শ-

মানসিক সচেতনতা
দীর্ঘদিন বাসায় অনলাইনে ক্লাস করার পর স্কুলে যেতে অনেক শিশু অনীহা বোধ করতে পারে। তাই সন্তানের সঙ্গে খোলাখুলি কথা বলুন। বর্তমান পরিস্থিতিতে সম্পর্কে তাকে অবগত করুন। সম্ভব হলে নিজেই প্রথম কয়েকদিন স্কুলে পৌঁছে দিন।

সুরক্ষা সামগ্রী
সরকারি নির্দেশনাগুলো সন্তানের সঙ্গে শেয়ার করুন। কিভাবে স্কুলে স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলবে সে বিষয়ে পরামর্শ দিন। কিছু নিয়মের পরিবর্তন যেমন- মাস্ক পরে থাকা বা শিক্ষক-বন্ধুদের থেকে দূরত্ব মেনে চলা। এমন বিষয়গুলো স্বাভাবিক, তা সন্তানকে বোঝান। এই সব নিয়ম মেনে চললে সে সুস্থ থাকবে তাও তাকে বোঝানো প্রয়োজন। বারবার হাত ধোয়া বা স্যানিটাউজ করা যে সবার স্বাস্থ্যের ভালো তাও বোঝান। স্কুল ব্যাগে মাস্ক, স্যানিটাইজারের মত প্রয়োজনীয় সুরক্ষা সামগ্রী দিয়ে দিন।

সময় দিন
করোনার কারণে স্বাভাবিক জীবনযাপনে অনেক পরিবর্তন এসেছে। আপনার সন্তান স্কুল যাওয়া শুরু করলে তার স্বাস্থ্য, পড়াশোনা, মানসিক স্বাস্থ্য, আচার-আচরণের প্রতি বিশেষ নজর রাখুন। সে কোনো মানসিক সমস্যায় ভুগছে কিনা সে দিকে খেয়াল রাখুন। হতে পারে দুঃখ, রাগ, মনোযোগের সমস্যা, খেলায় অনীহা বা হোমওয়ার্ক করতে অনীহা হচ্ছে। এমন সময় সন্তানের পাশে থাকুন। তাকে সময় দিন।

ঘুমের অভ্যাস
দীর্ঘ সময় বাসায় থাকার কারণে শিশুর ঘুমের অভ্যাস পরিবর্তন হওয়া খুব স্বাভাবিক। অনেকের ‘মর্নিং শিফট’ এর ক্লাসে ফিরতে সমস্যা হতে পারে। এজন্য শিশুকে রাতে তাড়াতাড়ি ঘুমিয়ে যাওয়ার অভ্যাস করুন। প্রয়োজনীয় সময়ে তাকে জেগে উঠার অভ্যাস করান। স্কুলের যাওয়ার আগের সন্ধ্যায় শিশুদের রিল্যাক্স রাখার চেষ্টা করুন।

Place your advertisement here
Place your advertisement here