• সোমবার   ১৭ জানুয়ারি ২০২২ ||

  • মাঘ ৩ ১৪২৮

  • || ১২ জমাদিউস সানি ১৪৪৩

Find us in facebook
সর্বশেষ:
বাংলাদেশকে আরো ৯৬ লাখ ফাইজার টিকা দিলো যুক্তরাষ্ট্র পীরগঞ্জে পৃথক সড়ক দুর্ঘটনায় শিশুসহ তিন জনের মৃত্যু পরিবেশ উন্নয়নে বৃক্ষরোপণ কার্যক্রম অব্যাহত রয়েছে: পরিবেশমন্ত্রী নাসিক নির্বাচন জাতীয় পর্যায়ে উদাহরণ সৃষ্টি করবে: কৃষিমন্ত্রী ভূমি ব্যবস্থাপনাকে এসওপি’র আওতায় আনা হচ্ছে: ভূমি সচিব

তৃতীয় ধাপের নির্বাচনে কালীগঞ্জে জাপা প্রার্থীদের জামানত বাজেয়াপ্ত

– দৈনিক রংপুর নিউজ ডেস্ক –

প্রকাশিত: ৭ ডিসেম্বর ২০২১  

Find us in facebook

Find us in facebook

লালমনিরহাটের কালীগঞ্জ উপজেলায় তৃতীয় ধাপের ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে ভরাডুবি হওয়ায় জামানত বাজেয়াপ্ত করা হচ্ছে জাতীয় পার্টির (জাপা) প্রার্থীদের। ঐ ইউনিয়নের পাঁচটি ইউনিয়নে চেয়ারম্যান পদে নির্বাচন করেন জাপা নেতারা।

কালীগঞ্জ উপজেলা নির্বাচন অফিস সূত্রে জানা গেছে, গত ২৮ নভেম্বর অনুষ্ঠিত ভোটগ্রহণে ঐ উপজেলার আটটি ইউনিয়নের মধ্যে পাঁচটিতেই অংশ নেন জাপা প্রার্থীরা। প্রাপ্ত ভোট অনুযায়ী, তাদের মধ্যে একজন চার অংকের ঘরে পৌঁছাতে পারলেও বাকি চারজনই পারেননি। নির্বাচনের নিয়ম অনুযায়ী, মোট প্রদত্ত ভোটের ৮ ভাগের ১ ভাগ ভোট না পাওয়ায় তাদের জামানত বাজেয়াপ্ত হচ্ছে।

জামানত হারানো জাপা প্রার্থীরা হলেন- মদাতী ইউনিয়ন জাতীয় পার্টির আহ্বায়ক মো. রফিকুল ইসলাম, দলগ্রাম ইউনিয়ন জাতীয় পার্টির সভাপতি মো. জাহিদ হাসান, চলবলা ইউনিয়ন জাপার আহ্বায়ক মো. আব্দুল আলিম, কাকিনা ইউনিয়ন জাপার সদস্য মো. হায়দার আলী, তুষভান্ডার ইউনিয়নে উপজেলা জাপার সদস্য মাসুদ রানা।

দলীয় প্রার্থীদের এমন ভরাডুবিতে নাখোশ লালমনিরহাট জেলা ও কালীগঞ্জ উপজেলা জাতীয় পার্টির নেতাকর্মীরা। তাদের অভিযোগ, নির্বাচনে জাতীয় পার্টি শুধু নামেই ছিল। জেলার কোনো নেতা নির্বাচনী প্রচারণায় আসেননি। মাঠে পাওয়া যায়নি কর্মীদেরও। এমনিতেই দলের নাজুক অবস্থা। এর মধ্যে উপযুক্ত প্রার্থী মনোনয়ন না দেওয়ায় নির্বাচনে এমন ভরাডুবি হয়েছে।

তুষভান্ডার ইউনিয়নে জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান পদপ্রার্থী মাসুদ রানা বলেন, দলের এমন অবস্থার মধ্যেও আমরা অনেক চেষ্টা করেছি। জেলা পর্যায় থেকে কিছুটা ভূমিকা রাখতে পারলে ভোটের ফলাফল আরো ভালো হতে পারত।

কালীগঞ্জ উপজেলা জাপার সভাপতি শাহ সুলতান নাসিরুদ্দিন আহম্মেদ বলেন, দলে নেতৃত্ব সংকট চলছে। এর মধ্যেই আমরা প্রার্থীদের পক্ষে সাধ্যমতো কাজ করেছি। হাইকমান্ড ও জেলা পর্যায়ের নেতারা হাত বাড়িয়ে দিলেই এমন ভরাডুবি এড়ানো যেত।

Place your advertisement here
Place your advertisement here