ব্রেকিং:
করোনা পরিস্থিতিতে দেশের মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক পর্যায়ের সব শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের চলমান ছুটি আগামী ৩০ জুন পর্যন্ত বৃদ্ধি করা হয়েছে
  • রোববার   ১৩ জুন ২০২১ ||

  • জ্যৈষ্ঠ ২৯ ১৪২৮

  • || ০১ জ্বিলকদ ১৪৪২

Find us in facebook
সর্বশেষ:
সম্মিলিত প্রচেষ্টায় দেশ থেকে শিশুশ্রম নিরসন সম্ভব- প্রধানমন্ত্রী করোনা আপডেট: গত ২৪ ঘণ্টায় দেশে আরও ৩৯ জনের মৃত্যু, শনাক্ত ১৬৩৭ ৩০ জুন পর্যন্ত বাড়লো শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের ছুটি `উদোর পিণ্ডি বুধোর ঘাড়ে চাপানো বিএনপির পুরনো অভ্যাস` মিঠাপুকুরে করলাক্ষেতে ভাইরাসজনিত পাতা মোড়ানো রোগ দেখা দিয়েছে

করোনার দুঃসময়ে মানুষের পাশে নেই বিএনপি

– দৈনিক রংপুর নিউজ ডেস্ক –

প্রকাশিত: ২৪ এপ্রিল ২০২১  

Find us in facebook

Find us in facebook

সারাবিশ্বের মতো দেশেও করোনাভাইরাসের দ্বিতীয় ঢেউ চলছে। এ ঢেউয়ে আশঙ্কাজনক হারে মানুষ সংক্রমিত হচ্ছেন। সংক্রমিত মানুষ উল্লেখযোগ্য হারে মারাও যাচ্ছেন। সরকার লকডাউনসহ নানা পদক্ষেপ নিয়েছে। পিছিয়ে নেই ক্ষমতাসীন দল আওয়ামী লীগ ও তার অঙ্গ সংগঠনগুলোও। কিন্তু করোনার এ দুঃসময়ে মানুষের পাশে নেই বিএনপি।

দলীয় সূত্র বলছে, করোনা মোকাবিলায় আওয়ামী লীগ ও তার অঙ্গ সংগঠন নানা কার্যকর ভূমিকা পালন করছে। যুবলীগ, ছাত্রলীগ ও কৃষকলীগের পক্ষ থেকে ত্রাণ সহায়তার পাশাপাশি দেশের বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকদের সমন্বয়ে বড় পরিসরে টেলিমেডিসিন সেবা উন্মুক্ত করা হয়েছে। কিন্তু বিএনপির মতো একটি দল মানুষকে টেলিমেডিসিন সেবা দেয়া তো দূরের কথা, খাদ্য সহায়তা পর্যন্ত দেয়নি। এতে তৃণমূলের নেতাকর্মীরা বিএনপির নীতি নির্ধারকদের প্রতি চরম অসন্তোষ প্রকাশ করেছেন।

সূত্র আরো বলছে, বিএনপি করোনাকালে মানুষের দোরগোড়ায় যায়নি। দলটির অঙ্গ সংগঠনগুলোরও একই অবস্থা। পদ-পদবির নেশায় শুধু লন্ডনমুখী রাজনীতি নিয়ে সবাই ব্যস্ত রয়েছে। দুঃসময়ে মানুষের পাশে না দাঁড়ালে নির্বাচনের সময় ভোটাররা বিএনপিকে ভোট দেবে কেন?

এ বিষয়ে জানতে চাইলে বিএনপির একজন শীর্ষ নেতা বলেন, আমাদের দলের অনেক নেতাকর্মী করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন। এরমধ্যে অনেকেই নীতিনির্ধারক পর্যায়ের রয়েছেন। আমরা নির্দিষ্ট কোনো কর্মপরিকল্পনা করতে পারিনি। এছাড়া দলের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমান কোনো নির্দেশনা না দিলে আমাদের চুপ করে থাকতে হয়। নিজ উদ্যোগে কিছু বলা তো আর সম্ভব না।

বিএনপির শীর্ষ এ নেতা আরো বলেন, দলের চেয়ারপার্সন খালেদা জিয়া হঠাৎ করোনায় আক্রান্ত হওয়ায় দলের মধ্যে আতঙ্ক অনেক গুণে বেড়ে গেছে। এ পরিস্থিতিতে করোনা মোকাবিলায় আমাদের বড় কোনো কর্মসূচি নেই। তবে করোনার এ দুঃসময়ে মানুষের পাশে দাঁড়াতে দলীয় সভায় আলোচনা হবে।

রাজনৈতিক বিশ্লেষকরা বলেন, দলটির চেয়ারপার্সনসহ একের পর এক জ্যেষ্ঠ নেতা করোনায় আক্রান্ত হওয়ার খবরে বিএনপির নেতাকর্মীদের মধ্যে আতঙ্ক বেড়েছে। দলটির যেসব নেতা সরকারের আনা টিকা নিয়েছেন তারা সুস্থ রয়েছেন। যারা টিকা নিতে অগ্রাহ্য করেছেন তারা করোনায় আক্রান্ত হচ্ছেন।

তারা আরো বলেন, দলটির নেতারা করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন। কিন্তু আক্রান্ত হওয়ার আগে করোনা মোকাবিলায় দেশের মানুষের জন্য কোনো দৃশ্যমান পরিকল্পনা তৈরি করতে পারেননি তারা। খাবার সহায়তা থেকে শুরু করে স্বাস্থ্য সুরক্ষা সামগ্রী বিতরণ করেনি দলটি। এর ফলে তৃণমূল নেতাকর্মীদের চক্ষুশূলে পরিণত হয়েছেন বিএনপির নীতি নির্ধারক নেতারা।

Place your advertisement here
Place your advertisement here