• সোমবার ১৭ জুন ২০২৪ ||

  • আষাঢ় ২ ১৪৩১

  • || ০৯ জ্বিলহজ্জ ১৪৪৫

Find us in facebook

যে কারণে আমাদের জীবনে তাওবা করা জরুরি

– দৈনিক রংপুর নিউজ ডেস্ক –

প্রকাশিত: ৩১ মে ২০২৩  

Find us in facebook

Find us in facebook

মহান রাব্বুল আলামিন আল্লাহ তাআলার দরবারে বা তার কাছে বান্দার তাওবা অধিক পছন্দনীয়। মানুষ অপরাধ করার পর আল্লাহ তাআলার নিকট তাওবা করা ও গুনাহের জন্য ক্ষমা প্রার্থনা করাকে তিনি অত্যধিক পছন্দ করেন।

আল্লাহ তাআলা তাওবা কবুল করেন এবং তাওবার মাধ্যমে বান্দাকে পুত পবিত্র করেন। 

তাওবা মানে ফিরে আসা। পরিভাষায় তাওবা হলো, যেসব কথা ও কাজ মানুষকে আল্লাহর থেকে দূরে সরিয়ে দেয় তা থেকে ফিরে আসা এবং সে সব কথা ও কাজে লিপ্ত হওয়া, যা দ্বারা আল্লাহর নৈকট্য লাভ করা যায় ও তার অসন্তুষ্টি থেকে বাঁচা যায়। সহজ কথায় তাওবা হলো, সব পাপ কর্ম থেকে ফিরে এসে সৎকাজে প্রবৃত্ত হওয়া।

ইমাম নববী (রহ.) বলেন, উলামায়ে কেরাম বলেছেন, প্রতিটি গুনাহ থেকে তাওবা করা ওয়াজিব।

তাওবা দুনিয়ায় উত্তম জীবন দান করে। আল্লাহ তাআলা পবিত্র কোরআনে ইরশাদ করেছেন, ‘তোমরা তোমাদের প্রতিপালকের কাছে গুনাহের ক্ষমা প্রার্থনা করো, অতঃপর তার কাছে তাওবা করো। তিনি তোমাদের এক নির্ধারিতকাল পর্যন্ত উত্তম জীবন উপভোগ করতে দেবেন এবং যে কেউ বেশি আমল করলে তাকে নিজের পক্ষ থেকে বেশি প্রতিদান দেবেন।’ (সূরা: হুদ, আয়াত: ৩)

তারপর তিনি তাওবা শুদ্ধ হওয়া ও কবুল হওয়ার জন্য কয়েকটি শর্তের কথা উল্লেখ করেছেন। তিনি বলেন, যদি গুনাহ আল্লাহ ও বান্দার মধ্যকার সংশ্লিষ্ট বিষয় হয় এবং তার সঙ্গে কোনো লোকের হক জড়িত না থাকে তবে তা থেকে তাওবা করার তিনটি শর্ত আছে-

১.  তাওবাকারীকে গুনাহ থেকে বিরত থাকতে হবে।

২.  সে তার কৃত গুনাহের জন্য অনুতপ্ত হতে হবে।

৩.  তাকে আর কখনো গুনাহ না করার ব্যাপারে দৃঢ় প্রতিজ্ঞ হতে হবে।

আর গুনাহের কাজটি যদি কোনো ব্যক্তির হক বা অধিকারের সঙ্গে সংশ্লিষ্ট থাকে, তাহলে তার থেকে তাওবা করার উপরোক্ত তিনটি শর্ত ছাড়া আরো একটি শর্ত আছে। তা হলো, তাওবাকারীকে হকদার ব্যক্তির প্রাপ্য হক আদায় করতে হবে। যদি গুনাহটি কারো ধন-সম্পত্তির বিষয়ে হয়ে থাকে অথবা এরূপ অন্য কিছু থাকে, তাহলে তাকে তা ফেরত দিতে হবে। কোনো প্রকার দোষারোপ (যেমন: জিনার অপবাদ, মিথ্যা চুরির অপবাদ) বা এরূপ অন্য কোনো বিষয় হয়ে থাকলে, তাহলে সংশ্লিষ্ট ব্যক্তি থেকে তার শাস্তি ভোগ করতে হবে অথবা তার কাছে ক্ষমা চাইতে হবে।

অনুরূপভাবে গিবত, গালাগাল, কাউকে অপমান করা ইত্যাদি বিষয়ে সংশ্লিষ্ট ব্যক্তি থেকে ক্ষমা প্রার্থনা করতে হবে।

ইমাম নববী (রহ.) বলেন, সব গুনাহ থেকে তাওবা করা ওয়াজিব। কিছু গুনাহ তাওবা করলে তা গ্রহণযোগ্য হবে। তবে বাকি গুনাহগুলো বাকি থেকে যাবে। কোরআন, সুন্নাহ ও উম্মতের ইজমার মাধ্যমে তাওবা করা ওয়াজিব প্রমাণিত হয়েছে। (সূত্র রিয়াজুস সালেহিন, তাওবা অধ্যায়)

আল্লাহ তাআলা পবিত্র কোরআনুল কারিমের বিভিন্ন আয়াতে মুমিনদের তাওবা করার আদেশ দিয়েছেন। যেমন এক আয়াতে আল্লাহ তাআলা ইরশাদ করেছেন, ‘হে মুমিনরা, তোমরা সবাই আল্লাহর কাছে তাওবা করো। তাহলে তোমরা কল্যাণপ্রাপ্ত হবে’। (সূরা: নূর, আয়াত: ৩১)

অন্য আয়াতে বলেছেন, (তরজমা) তোমরা তোমাদের প্রতিপালকের কাছে ক্ষমা প্রার্থনা করো। অতঃপর তাওবা করো’। (সূরা হুদ, আয়াত: ৩)

তাওবা করার মাধ্যমে মুমিন বান্দা শুধু নিষ্পাপ ও গুনাহমুক্ত হয় না; বরং ইহকালীন ও পরকালীন বহু কল্যাণ এবং সুখ-শান্তিময় জীবন লাভ করেন। এখানে তাওবার কিছু উপকারিতা সংক্ষেপে উল্লেখ করা হলো-

তাওবা আগের সব গুনাহ দূর করে দেয় এবং জান্নাত দান করে। আল্লাহ তাআলা ইরশাদ করেছেন, ‘হে মুমিনরা, তোমরা আল্লাহর কাছে খাঁটি তাওবা করো। আশা করা যায় তোমাদের প্রতিপালক তোমাদের পাপ তোমাদের থেকে মোচন করে দেবেন এবং তোমাদের এমন জান্নাতে প্রবেশ করাবেন, যার নিচে নহর বহমান থাকবে। (সূরা: তাহরিম, আয়াত: ৮)

এই আয়াতে আল্লাহ তাওবা করার আদেশ করেছেন, পাশাপাশি তার ফলাফল উল্লেখ করেছেন যে এর দ্বারা পাপ মোচন করে দেবেন এবং তাদের জান্নাতে প্রবেশ করাবেন। তাওবা পাপকাজগুলোকে পুণ্য দ্বারা পরিবর্তন করে দেয়।

আল্লাহ তাআলা বিভিন্ন পাপ ও সেগুলোর শাস্তি সম্পর্কে আলোচনা করার পর বলেছেন, ‘তবে কেউ তাওবা করলে, ঈমান আনলে এবং সৎকর্ম করলে আল্লাহ এরূপ লোকদের পাপরাশিকে পুণ্য দ্বারা পরিবর্তিত করে দেবেন। আল্লাহ অতি ক্ষমাশীল, পরম দয়ালু। আর যে ব্যক্তি তাওবা করে ও সৎকর্ম করে, সে মূলত আল্লাহর দিকে যথাযথভাবে ফিরে আসে’। (সূরা: ফুরকান, আয়াত: ৭০-৭১)

তাওবা দুনিয়ায় উত্তম জীবন দান করে। আল্লাহ তাআলা পবিত্র কোরআনে ইরশাদ করেছেন, ‘তোমরা তোমাদের প্রতিপালকের কাছে গুনাহের ক্ষমা প্রার্থনা করো, অতঃপর তার কাছে তাওবা করো। তিনি তোমাদের এক নির্ধারিতকাল পর্যন্ত উত্তম জীবন উপভোগ করতে দেবেন এবং যে কেউ বেশি আমল করলে তাকে নিজের পক্ষ থেকে বেশি প্রতিদান দেবেন।’ (সূরা: হুদ, আয়াত: ৩)

ইয়া আল্লাহ! আমাদের সবাইকে খাঁটি তাওবাকারী হিসেবে কবুল করুন। এবং যথাযত ভাবে তওবা করার তাওফিক দান করুন। আমিন।

Place your advertisement here
Place your advertisement here