• বৃহস্পতিবার ২০ জুন ২০২৪ ||

  • আষাঢ় ৫ ১৪৩১

  • || ১২ জ্বিলহজ্জ ১৪৪৫

Find us in facebook

ঈদ ঘিরে চাঙা রংপুরের রাজনীতির মাঠ

– দৈনিক রংপুর নিউজ ডেস্ক –

প্রকাশিত: ৭ এপ্রিল ২০২৪  

Find us in facebook

Find us in facebook

দেশের উপজেলা পরিষদগুলোর নির্বাচনের প্রস্তুতি নিয়েছে নির্বাচন কমিশন। চার ধাপে চলতি বছর এপ্রিলের শেষ দিকে এই নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবার কথা রয়েছে বলে জানিয়েছে নির্বাচন কমিশন। এমন ঘোষণায় সরব হয়ে উঠেছে রংপুর সদরসহ জেলার আট উপজেলার সম্ভাব্য প্রার্থীরা। সবচেয়ে বেশি সরব ক্ষমতাসীন দল আওয়ামী লীগের সম্ভাব্য প্রার্থীরা।

 যদিও এবারের উপজেলা নির্বাচন দলীয় প্রতীকে হবে না বলে জানাগেছে। তারপরেও স্থানীয় সংসদ সদস্যের আর্শীবাদসহ কেন্দ্রীয় লবিং করছেন অনেকেই। ঈদ উল ফিতরকে ঘিরে আসন্ন উপজেলা পরিষদ নির্বাচনের সম্ভাব্য প্রার্থীদেও তৎপরতা বেড়েছে কয়েকগুণ।সভা—সমাবেশ ও ইফতার মাহফিলসহ কেউ কেউ ঈদ উপলক্ষে মসজিদ—মাদরাসায় অনুদানও দিচ্ছেন। অনেকে দরিদ্র মানুষকে ঈদ উপহারও দিচ্ছেন। দান—খয়রাতের প্রবণতা বেড়ে গেছে। সম্ভাব্য প্রার্থীরা বিভিন্ন উপায়ে ভোট চাচ্ছেন। সব মিলিয়ে ঈদ উল ফিতর ঘিরে চাঙ্গা হয়ে উঠেছে রংপুর সদরসহ জেলার আট উপজেলার রাজনীতির মাঠ।

খোঁজ নিয়ে জানাগেছে, প্রথম ধাপে দেশের ১৫২টি উপজেলা পরিষদে আগামী ৮ মে নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। রংপুরের দুই উপজেলায় প্রথম ধাপের নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। উপজেলা দুটি হচ্ছে কাউনিয়া ও পীরগাছা। দুই উপজেলাতেই আওয়ামী লীগের একাধিক প্রার্থী রয়েছেন।  বিভিন্ন মসজিদে ইফতার ও দোয়া মাহফিলে সম্ভাব্য প্রার্থীরা নিজেদের পরিচয় তুলে ধরে দোয়া চান। এবার দলীয় প্রতীক না থাকলেও রংপুরের আট উপজেলায় সম্ভাব্য প্রার্থীরা নির্বাচনি প্রচারণা চালাচ্ছেন।

কাউনিয়া উপজেলায় চেয়ারম্যান পদে বর্তমান উপজেলা চেয়ারম্যান ও উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি আনোয়ারুল ইসলাম মায়া, উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান ও জেলা আওয়ামী লীগের সদস্য আব্দুর রাজ্জাক, সাবেক ইউপি চেয়ারম্যান শফিকুল ইসলাম দুলাল নির্বাচন করবেন। এছাড়াও সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান মাহফুজার রহমান মিঠু, আইনজীবি হুমায়ন কবির মুকুল, মোহাম্মদ আলী জিন্নাহ, আব্দুল হালিমসহ কয়েকজনের নাম শোনা যাচ্ছে।

পীরগাছা উপজেলায় চেয়ারম্যান পদে আওয়ামী লীগ থেকে যুবলীগের কেন্দ্রীয় সহ—সম্পাদক মনোয়ারুল ইসলাম মাসুদ,  উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি তসলিম উদ্দিন, সাধারণ সম্পাদক আব্দুল্ল্যাহ আল মাহমুদ মিলন, উপজেলা যুবলীগের সাবেক উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান আরিফুল হক লিটন, রংপুর মহানগর জামায়াতে ইসলামীর আমীর এটিএম আজম খান, তৈয়ব মিয়া প্রার্থী হবেন।

এর বাহিরে রংপুর সদর উপজেলায় আওয়ামী লীগ মহানগর কমিটির আহবায়ক ডা. দেলোয়ার হোসেন, রংপুর সদর উপজেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক ও বর্তমান মহানগর আওয়ামী লীগের সদস্য এ্যাড. ফিরোজ কবির চৌধুরী গুঞ্জন, জেলা আ'লীগের সদস্য জাহাঙ্গীর হোসেন বকসি, জেলা আওয়ামী লীগের সদস্য ও চন্দনপাট ইউনিয়ন চেয়ারম্যান আমিনুর রহমান, জেলা আওয়ামী লীগের সাবেক উপদেষ্টা মফিজার রহমান রাজু, হরিদেবপুর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান ইকবাল হোসেন, জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি এমএম সাব্বির হোসেন, জামায়াতে ইসলামীর আব্দুল গণি,

গঙ্গাচড়া উপজেলায় আওয়ামী লীগ থেকে বর্তমান চেয়ারম্যান রুহুল আমিন, উপজেলা আওয়ামী লীগের নেতা জোনায়েত চৌধুরী, নোহালী ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যান আবুল কালাম আজাদ টিটুল, উপজেলা শিক্ষা ও মানব কল্যাণ সম্পাদক আরিফুজ্জামান লিখন, ব্যবসায়ী কামেল সেরাফি রাজিব, বেতগাড়ি ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যান কামারুজ্জামান লিপ্টন, জামায়াতে ইসলামীর রায়হান সিরাজ,

বদরগঞ্জ উপজেলায় বর্তমান চেয়ারম্যান ও উপজেলা যুবলীগের আহবায়ক ফজলে রাব্বী সুইট, বদরগঞ্জ পৌরসভার সাবেক মেয়র উত্তম কুমার, উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান তাজুল ইসলাম,

তারাগঞ্জ উপজেলায় বর্তমান চেয়ারম্যান আনিছুর রহমান লিটন ও উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক সাবেক ইউপি চেয়ারম্যান হারুনুর রশিদ বাবুল,

মিঠাপুকুর উপজেলায় আওয়ামী লীগ থেকে বর্তমান ভাইস চেয়ারম্যান ও উপজেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম আহবায়ক বাবু নিরঞ্জন মহন্ত, উপজেলা যুবলীগের সাবেক সভাপতি কামরুজ্জামান কামরু।  জামায়াতে ইসলামীর মাওলানা এনামুল হক স্বতন্ত্র ভাবে নির্বাচন করবেন বলে জানাগেছে।

পীরগঞ্জ উপজেলায় আওয়ামী লীগ থেকে বর্তমান চেয়ারম্যান নুর মোহাম্মদ মন্ডল, জেলা আওয়ামী লীগের আহবায়ক একেএম শায়াদত হোসেন বকুল, আওয়ামী লীগ নেতা জাহাঙ্গীর আলম চৌধুরী, জামায়াতে ইসলামীর মাওলানা নুরুল আমিন নির্বাচন করবেন। এর বাহিরে স্বতন্ত্র ও বিভিন্ন দল থেকে দুই—একজনের নাম শোনা যাচ্ছে।

এদিকে জাতীয় পার্টির সূত্রে জানা গেছে, প্রাথমিকভাবে গঙ্গাচড়া উপজেলায়  সাবেক ইউপি চেয়ারম্যান ও উপজেলার সাবেক সভাপতি সামছুল আলম, তারাগঞ্জে সাবেক ইউপি চেয়ারম্যান শাহিনুর রহমান মার্শাল, পীরগঞ্জে উপজেলা জাতীয় পার্টির সাধারণ সম্পাদক নুর আলম যাদু, কাউনিয়ায় শাহিনুজ্জামান শাহিন, বদরগঞ্জে মোফাজ্জল হোসেন মাস্টার ও মাসুদ রানা, পীরগাছা উপজেলায় বর্তমান চেয়ারম্যান ও উপজেলা কমিটির সভাপতি শাহ মাহবুবার রহমান, মিঠাপুকুর উপজেলায় আনিছুল ইসলাম আনিছ ও রংপুর সদরে সাবেক ভাইস চেয়ারম্যান মাসুদ নবী মুন্নাকে প্রাথমিকভাবে প্রার্থী হিসেবে মনোনীত করা হয়। তবে স্থানীয় বিএনপি নেতা বা সমর্থিত কোনো সম্ভাব্য প্রার্থীর নাম এখনো শোনা যায়নি।

পীরগাছা উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আবদুল্লাহ আল মামুন মিলন বলেন, আমি নির্বাচন করার সিদ্ধান্ত নিয়েছি বলেই প্রচার—প্রচারণা চালাচ্ছি।

জেলা আওয়ামী লীগের সদস্য ও কাউনিয়া উপজেলার ভাইস চেয়ারম্যান আবদুর রাজ্জাক বলেন, ঈদ উপলক্ষে আমি ভোটারদের সঙ্গে কুশল বিনিময় করছি। আশা করি ভোটাররা আমাকে বিমুখ করবেন না। আমি চেয়ারম্যান নির্বাচিত হলে কাউনিয়া উপজেলাকে স্মাট হিসেবে গড়ে তোলা হবে।

Place your advertisement here
Place your advertisement here