• শুক্রবার ২১ জুন ২০২৪ ||

  • আষাঢ় ৭ ১৪৩১

  • || ১৩ জ্বিলহজ্জ ১৪৪৫

Find us in facebook

প্রতিষ্ঠালগ্ন থেকে আওয়ামী লীগের সভাপতি-সাধারণ সম্পাদক হয়েছেন যারা

– দৈনিক রংপুর নিউজ ডেস্ক –

প্রকাশিত: ২৪ ডিসেম্বর ২০২২  

Find us in facebook

Find us in facebook

প্রতিষ্ঠালগ্ন থেকে আওয়ামী লীগের সভাপতি-সাধারণ সম্পাদক হয়েছেন যারা            
উপমহাদেশের অন্যতম প্রাচীন এবং ঐতিহ্যবাহী রাজনৈতিক দল আওয়ামী লীগের জন্ম ১৯৪৯ সালের ২৩ জুন পুরান ঢাকার কে এস দাস লেনের রোজ গার্ডেনে। এরই মধ্যে পার হয়েছে ৭৩টি বছর। বর্তমানে দলটির সভাপতির দায়িত্ব পালন করছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

প্রতিষ্ঠার পর থেকে আওয়ামী লীগের সভাপতি হয়েছেন ৮ জন ও সাধারণ সম্পাদক হয়েছেন ৯ জন। তাদের মধ্যে বর্তমান সভাপতি শেখ হাসিনা সর্বোচ্চ নয়বার, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান এবং প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি মাওলানা আবদুল হামিদ খান ভাসানী তিনবার করে সভাপতি নির্বাচিত হয়েছেন।

এছাড়া মওলানা আবদুর রশীদ তর্কবাগীশ দুইবার এবং এ এইচ এম কামারুজ্জামান ও আবদুল মালেক উকিল একবার করে সভাপতি নির্বাচিত হয়েছেন। আর সৈয়দা জোহরা তাজউদ্দিন একবার নির্বাচিত হয়েছেন দলের আহ্বায়ক। এছাড়াও মহিউদ্দিন আহমেদ দলের ভারপ্রাপ্ত সভাপতির দায়িত্ব পালন করেছেন।

এখন পর্যন্ত আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক হয়েছেন ৯ জন। সবচেয়ে বেশি চারবার করে হয়েছেন বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ও জিল্লুর রহমান। এছাড়া তাজউদ্দিন আহমেদ তিনবার, আবদুর রাজ্জাক ও সৈয়দ আশরাফুল ইসলাম, সৈয়দা সাজেদা চৌধুরী ও ওবায়দুল কাদের দুইবার করে, প্রতিষ্ঠাতা সাধারণ সম্পাদক শামসুল হক, আবদুল জলিল একবার করে সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত হন।

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ১৯৬৬ সালের ২৫ জানুয়ারি দলের সভাপতি হন ও ১৯৭৪ সালের ১৮ জানুয়ারি পর্যন্ত আট বছর পার্টি পরিচালনা করেন। দলের প্রথম প্রধান মওলানা আবদুল হামিদ খান ভাসানী ১৯৪৯ সালের ২৩ জুন থেকে ১৯৫৬ সালের ২৭ জুলাই পর্যন্ত সাত বছর সভাপতির দায়িত্ব পালন করেন। এই কমিটিতে শামসুল হক সাধারণ সম্পাদক এবং শেখ মুজিবুর রহমান যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত হন।

১৯৫৩ সালে আওয়ামী লীগের দ্বিতীয় কাউন্সিলে মওলানা আবদুল হামিদ খান ভাসানী ও বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান যথাক্রমে সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত হন। ১৯৫৫ সালে তৃতীয় কাউন্সিল অনুষ্ঠিত হয় ও মওলানা আবদুল হামিদ খান ভাসানী ও শেখ মুজিবুর রহমান পুনরায় সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত হন।

১৯৫৬ সালের ২৭ জুলাই থেকে ১৯৫৭ সালের ১০ অক্টোবর পর্যন্ত এক বছর দলের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন হোসেন শহীদ সোহরাওয়ার্দী। ১৯৫৭ সালে আওয়ামী লীগের চতুর্থ কাউন্সিলে মাওলানা আবদুর রশীদ তর্কবাগীশ ভারপ্রাপ্ত সভাপতি ও বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান তৃতীয়বারের মতো সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত হন। ১৯৬৪ সালে অনুষ্ঠিত দলের পঞ্চম কাউন্সিলে মাওলানা আবদুর রশীদ তর্কবাগীশ সভাপতি ও বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান চতুর্থবারের মতো সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত হন।

১৯৬৬ সালে অনুষ্ঠিত আওয়ামী লীগের ষষ্ঠ কাউন্সিল বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ঐতিহাসিক ৬ দফা সমর্থন করায় একটি ঐতিহাসিক ছিল। ঐ সম্মেলনে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান প্রথমবারের মতো আওয়ামী লীগের সভাপতি ও তাজউদ্দীন আহমদ সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত হন। ১৯৬৮ সালে সপ্তম কাউন্সিল অনুষ্ঠিত হয়। ওই সময় আগরতলা ষড়যন্ত্র মামলায় বঙ্গবন্ধু কারাগারে ছিলেন। বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ও তাজউদ্দীন আহমদ যথাক্রমে দলের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক পদে পুনর্নির্বাচিত হন।

১৯৭০ সালে আওয়ামী লীগের অষ্টম কাউন্সিল অনুষ্ঠিত হয় এবং বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান এবং তাজউদ্দীন আহমদ যথাক্রমে সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত হন। ১৯৭২ সালে স্বাধীন বাংলাদেশে নবম কাউন্সিল অনুষ্ঠিত হয় এবং বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ও জিল্লুর রহমান যথাক্রমে আওয়ামী লীগের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত হন।

১৯৭৪ সালের দশম কাউন্সিলে আ.লীগের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত হন এএইচএম কামারুজ্জামান ও জিল্লুর রহমান। ১৯৭৭ সালে একাদশ কাউন্সিল অনুষ্ঠিত হয় এবং সৈয়দা জোহরা তাজউদ্দীন দলের আহ্বায়ক নির্বাচিত হন। ১৯৭৮ সালে আওয়ামী লীগের দ্বাদশ কাউন্সিলে আবদুল মালেক উকিল ও আবদুর রাজ্জাক যথাক্রমে সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত হন।

১৯৮১ সালে ১৩ তম কাউন্সিল অনুষ্ঠিত হয়েছিল। এটি আওয়ামী লীগের জন্য একটি টার্নিং পয়েন্ট ছিল কারণ প্রায় ৪,০০০ কাউন্সিলর ও ডেলিগেট শেখ হাসিনা প্রবাসে থাকাকালীন তাকে সভাপতি নির্বাচিত করেছিলেন। আব্দুর রাজ্জাক সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত হন। আবদুর রাজ্জাক ১৯৮২ সালে পদ থেকে পদত্যাগ করেন ও সৈয়দা সাজেদা চৌধুরী ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক হন।

১৯৮৭ সালে ১৪তম কাউন্সিল অনুষ্ঠিত হয়। এতে শেখ হাসিনা ও সৈয়দা সাজেদা চৌধুরী যথাক্রমে দলের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত হন। ১৯৯২ সালে অনুষ্ঠিত এই অংশের ১৫তম কাউন্সিলে শেখ হাসিনা ও জিল্লুর রহমান যথাক্রমে সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত হন। ১৯৯৭ সালে অনুষ্ঠিত ১৬তম কাউন্সিলে শেখ হাসিনা ও জিল্লুর রহমান যথাক্রমে সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত হন।

১৭তম কাউন্সিল ২০০২ সালে অনুষ্ঠিত হয়। এতে শেখ হাসিনা এবং আব্দুল জলিল যথাক্রমে সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত হন। ২০০৭ সালের ১৮তম কাউন্সিলে শেখ হাসিনা ও সৈয়দ আশরাফুল ইসলাম যথাক্রমে সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত হন। ২০১২ সালে অনুষ্ঠিত ১৯তম কাউন্সিলে শেখ হাসিনা ও সৈয়দ আশরাফুল ইসলাম উভয়ই যথাক্রমে সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত হন।

২০১৬ সালে আওয়ামী লীগের ২০তম কাউন্সিল অনুষ্ঠিত হয়। এতে শেখ হাসিনা ও ওবায়দুল কাদের যথাক্রমে সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত হন। ২০১৯ সালের ২০-২১ ডিসেম্বর ঐতিহাসিক সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে ২১তম কাউন্সিল অনুষ্ঠিত হয়। কাউন্সিলে শেখ হাসিনা সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক পদে ওবায়দুল কাদের পুনর্নির্বাচিত হন।

Place your advertisement here
Place your advertisement here