ব্রেকিং:
দেশে করোনাভাইরাসে গত ২৪ ঘণ্টায় আরো ৫০ জনের মৃত্যু হয়েছে। এ নিয়ে মোট মারা গেলেন ৩ হাজার ২৩৪ জন। এছাড়া নতুন করে আক্রান্ত হয়েছেন এক হাজার ৯১৮ জন। এ নিয়ে মোট আক্রান্তের সংখ্যা ২ লাখ ৪৪ হাজার ২০ জন। রংপুর সিটি করপোরেশনের (রসিক) মেয়র মোস্তাফিজার রহমান ও তাঁর স্ত্রী জেলী রহমানের করোনা ভাইরাসের সংক্রমণ শনাক্ত হয়েছে।
  • বুধবার   ০৫ আগস্ট ২০২০ ||

  • শ্রাবণ ২০ ১৪২৭

  • || ১৫ জ্বিলহজ্জ ১৪৪১

Find us in facebook
সর্বশেষ:
রাষ্ট্রনায়ক ও বিশ্ব গণমাধ্যমের চোখে বঙ্গবন্ধু বন্যার্তদের পাশে নেই কুড়িগ্রাম বিএনপি ‘রাজধানীর বিদ্যুতের লাইন পর্যায়ক্রমে আন্ডারগ্রাউন্ডে চলে যাবে’ ফুলবাড়ীতে বিদ্যুৎস্পৃষ্টে যুবকের মৃত্যু বর্জ্য ব্যবস্থাপনায় সিটি কর্পোরেশনগুলো সফল : এলজিআরডি মন্ত্রী
৪০৩৭

সাড়ে ১২ কোটির বেশি মানুষ পাবে ১৯ প্রণোদনা প্যাকেজের সুবিধা

– দৈনিক রংপুর নিউজ ডেস্ক –

প্রকাশিত: ৮ জুলাই ২০২০  

Find us in facebook

Find us in facebook

সংসদ নেতা ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, বৈশ্বিক মহামারি নভেল করোনা ভাইরাস (কোভিড-১৯) পরিস্থিতি মোকাবিলা করে দেশের অর্থনীতি পুনরুদ্ধার ও জনগনের জীবন-জীবিকা রক্ষাকে প্রাধান্য দিয়ে নতুন অর্থবছরের বাজেট দেওয়া হয়েছে। কোভিড-১৯ এর জন্য সবকিছু স্থবির। আমরা আশাকরি, এই অবস্থা থাকবে না। এই অবস্থা থেকে উত্তরণ ঘটবে। 

প্রধানমন্ত্রী আরো বলেন- যদি হঠাৎ উত্তরণ ঘটে আগামীতে আমরা কি করবো সেটা চিন্তা করেই এই পদক্ষেপ নিয়েছি। এরইমধ্যে আমরা প্রায় ১ লাখ ৩ হাজার ১১৭ কোটি টাকার ১৯টি প্রণোদনা প্যাকেজ ঘোষণা করেছি। এই ১৯টি প্যাকেজ সম্পূর্ণ বাস্তবায়িত যখন হবে তখন ১২ কোটি ৫৫ লাখ মানুষ সুবিধা পাবে। এছাড়া প্রায় ১ কোটি ৬০ লাখ কর্মসুরক্ষা ও নতুন কর্মসৃজন হবে।

করোনাভাইরাসের প্রাদুর্ভাব মোকাবিলায় সরকারের গৃহিত পদক্ষেপের বিষয়গুলো তুলে ধরে সংসদ নেতা বলেন, আমরা ৪টি কৌশলগত কর্মপন্থা ঠিক করেছি। তা হচ্ছে- সরকারি ব্যয় বৃদ্ধি করণ, কর্মসৃজনকে প্রাধান্য দেওয়া বিলাসী ব্যয় নিরুসাহিত করা এবং কম গুরুত্বপূর্ণ ব্যয় পিছিয়ে দেওয়া। আর্থিক সহায়তা প্যাকেজ প্রণয়ন। সামাজিক সুরক্ষার আওতা বৃদ্ধি করণ ও বাজারে মুদ্রা সরবরাহ বৃদ্ধি করা।

সংসদ নেতা বলেন, করোনাভাইরাসের প্রাদুর্ভাবের কারণে অর্থনীতির প্রভাব কার্যকরীভাবে মোকাবিলা করার জন্য প্রায় ১ লাখ ৩ হাজার ১১৭ কোটি টাকার ১৯টি প্রণোদনা প্যাকেজ ঘোষণা করেছি। প্রণোদনা প্যাকেজসমূহ বাস্তবায়ন শুরু হয়েছে। ইতিমধ্যে ৫ কোটি ৭০ লাখ মানুষ প্রত্যক্ষভাবে সুবিধা পেয়েছে। ১৯টি প্যাকেজ সম্পূর্ণ বাস্তবায়িত যখন হবে তখন ১২ কোটি ৫৫ লাখ মানুষ সুবিধা পাবে। এছাড়া প্রায় ১ কোটি ৬০ লাখ কর্মসুরক্ষা ও নতুন কর্মসৃজন হবে।

প্রধানমন্ত্রী আরও বলেন, এসব কিছু বিবেচনায় নিয়ে অর্থমন্ত্রী ৫ লাখ ৬৮ হাজার কোটি টাকার বাজেট পেশ করেছে। আওয়ামী লীগ সরকারের ১৭তম বাজেট, বর্তমান মেয়াদের দ্বিতীয় বাজেট। স্বাধীনতার পর পর ১৯৭২ সালে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ৩টা বাজেট দেওয়ার সুযোগ পেয়েছিলেন। কাজেই সর্বসাকুল্যে ২০টি বাজেট আওয়ামী লীগ সরকার এ দেশকে উপহার দিয়েছে। এই বাজেটে অর্থনীতি পুনর্গঠন এবং করোনা মোকাবিলায় জীবন ও জীবিকা রক্ষাকে প্রাধান্য দিয়েছি। তাছাড়া বার্ষিক উন্নয়ন কর্মসূচিতে প্রাধান্য দেওয়ার ক্ষেত্রে স্বাস্থ্য, কৃষি, কর্মসৃজন এবং সামাজিক সুরক্ষা এবং নিরাপত্তা এগুলোকে অগ্রাধিকার দেওয়া হয়েছে।

Place your advertisement here
Place your advertisement here
জাতীয় বিভাগের পাঠকপ্রিয় খবর