• বুধবার ২৪ জুলাই ২০২৪ ||

  • শ্রাবণ ৯ ১৪৩১

  • || ১৬ মুহররম ১৪৪৬

Find us in facebook
সর্বশেষ:
সর্বোচ্চ আদালতের রায়ই আইন হিসেবে গণ্য হবে: জনপ্রশাসনমন্ত্রী। ২৫ জুলাই পর্যন্ত এইচএসসির সব পরীক্ষা স্থগিত।

বঙ্গবন্ধু –উন্নয়ন ও অগ্রগতির চিরন্তন এক বাতিঘর

– দৈনিক রংপুর নিউজ ডেস্ক –

প্রকাশিত: ১৬ আগস্ট ২০২৩  

Find us in facebook

Find us in facebook

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান পাকিস্তান থেকে বাংলাদেশের স্বাধীনতা সংগ্রামে অগ্রণী ভূমিকা পালন করেন। তিনি একজন ক্যারিশম্যাটিক নেতা ছিলেন এবং ১৯৭১ সালে পাকিস্তান থেকে স্বাধীনতা লাভের পর বাংলাদেশের রাষ্ট্রপতি হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন। তাঁর নেতৃত্ব ও দূরদর্শিতা সদ্য স্বাধীন দেশ গঠনে সহায়ক ভূমিকা পালন করেছিল।

১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্টের ভয়ানক সকালে একদল সেনা কর্মকর্তা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের সরকারের বিরুদ্ধে অভ্যুত্থান শুরু করেন। বিপথগামী সেনা কর্মকর্তাদের নেতৃত্বে দলটি ঢাকায় তার বাসভবনে হামলা চালায়। অভ্যুত্থানের ফলে বঙ্গবন্ধু, তার স্ত্রী, শিশু শেখ রাসেল, আত্মীয়স্বজন এবং সরকারি কর্মকর্তাসহ পরিবারের অধিকাংশ সদস্যকে নির্মমভাবে হত্যা করা হয়।

বঙ্গবন্ধুকে হত্যার পর, একটি সামরিক সরকার বাংলাদেশের নিয়ন্ত্রণ নেয় এবং দেশটি কয়েক বছর ধরে রাজনৈতিক অস্থিতিশীলতার সম্মুখীন হয়। নতুন শাসন ব্যবস্থা একটি ভিন্ন রাজনৈতিক এজেন্ডা অনুসরণ করে, যা দেশের রাজনৈতিক দৃশ্যপট পরিবর্তন করে।

পশ্চিম পাকিস্তানের শাসক শ্রেণির অধীনে তৎকালীন পূর্ব পাকিস্তানের (বর্তমানে বাংলাদেশ) জনগণের বছরের পর বছর রাজনৈতিক, অর্থনৈতিক, সামাজিকএবং ভাষা ও সাংস্কৃতিক শাসন, শোষণ, নিপীড়ন ওপ্রান্তিকতার সম্মুখীন হওয়ার প্রতিক্রিয়া হিসেবে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ২৬শে মার্চ, ১৯৭১ সালে পাকিস্তান থেকে বাংলাদেশের স্বাধীনতার আনুষ্ঠানিক ঘোষণা দেন।

এই ঘোষণাটি বাংলাদেশের স্বাধীনতা যুদ্ধের সূচনা হিসেবে চিহ্নিত হয়, যা বাংলাদেশের মুক্তিকামী সাধারণ মানুষ এবং পাকিস্তানি সামরিক বাহিনীর মধ্যে নয় মাসব্যাপী সশস্ত্র সংঘাত রূপে সংগঠিত হয়। ১৯৭১ সালের ১৬ ডিসেম্বর বাংলাদেশ মুক্তিবাহিনীর বিজয়ে যুদ্ধের সমাপ্তি ঘটে, যার ফলে বাংলাদেশ একটি স্বাধীন ও সার্বভৌম জাতি হিসেবে প্রতিষ্ঠিত হয়।

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান স্বাধীন জাতি হিসেবে বাংলাদেশে জাতি গঠনে উল্লেখযোগ্য অবদান রেখেছিলেন। তার নেতৃত্ব ও দূরদৃষ্টি দেশের উন্নয়ন ও অগ্রগতির ভিত্তি স্থাপন করেছিল।

বাংলাদেশের প্রতিষ্ঠাতা নেতা হিসেবে, বঙ্গবন্ধু তার গঠনকালে জাতিকে পথ দেখাতে অগ্রণী ভূমিকা পালন করেন। তার নেতৃত্ব এমন একটি দেশকে স্থিতিশীলতা ও দিকনির্দেশনা প্রদান করেছিল যেটি সবেমাত্র স্বাধীনতার জন্য দীর্ঘ এবং কঠিন সংগ্রাম থেকে উদ্ভূত হয়েছিল।

বাংলাদেশের স্বাধীনতা যুদ্ধের পর দেশটি ব্যাপক অবকাঠামো ধ্বংস এবং মানবিক সংকটের সম্মুখীন হয়। বঙ্গবন্ধু পুনর্গঠন ও পুনর্বাসন প্রচেষ্টা, যুদ্ধ-বিধ্বস্ত দেশ পুনর্গঠন এবং লক্ষ লক্ষ বাস্তুচ্যুত ও ক্ষতিগ্রস্ত নাগরিকদের সহায়তার দিকে মনোনিবেশ করেছিলেন।

তার নেতৃত্বে ১৯৭২ সালে স্বাধীন, সার্বভৌমবাংলাদেশ’রপ্রথম সংবিধান গৃহীত হয় যা শাসন ও গণতান্ত্রিক নীতির কাঠামো প্রদান করে। সংবিধানে বাঙালি জাতীয়তাবাদ, গণতন্ত্র, ধর্মনিরপেক্ষতা এবং সমাজতন্ত্রের আদর্শকে প্রতিফলিত করা হয়, যা একটি প্রগতিশীল ও অন্তর্ভুক্তিমূলক জাতির জন্য বঙ্গবন্ধুর মানবিক দৃষ্টিভঙ্গি প্রতিফলিত করে।

বঙ্গবন্ধু সামাজিক ন্যায়বিচার এবং অর্থনৈতিক ন্যায্যতার গুরুত্বের ওপর জোর দিয়েছিলেন । তিনি সম্পদ এবং সুযোগের আরও সুষম বন্টনের লক্ষ্যে সমাজের প্রান্তিক এবং সুবিধাবঞ্চিত অংশগুলিকে উন্নীত করার জন্য নীতির পক্ষে কথা বলেন।

বঙ্গবন্ধুর সরকার জমির মালিকানা এবং ভূমিহীনতার সমস্যা মোকাবিলায় কৃষি সংস্কারের সূচনা করেছিলেন। সংস্কারগুলি ভূমিহীন কৃষকদের জমি প্রদান, কৃষি উন্নয়নের প্রচার এবং গ্রামীণ দারিদ্র্য দূরীকরণের চেষ্টা করেছিল।

বঙ্গবন্ধুর নেতৃত্বে , সরকার অর্থনীতির কৌশলগত খাতগুলির উপর রাষ্ট্রীয় নিয়ন্ত্রণ নিশ্চিত করতে এবং অর্থনৈতিক স্বনির্ভরতা বৃদ্ধির জন্য বেশ কয়েকটি মূল শিল্প ও প্রতিষ্ঠানকে জাতীয়করণ করে।

তিনি নারীর অধিকার ও ক্ষমতায়নের পক্ষে সোচ্চার ছিলেন। তার সরকার শিক্ষা, কর্মশক্তি এবং রাজনীতিতে নারীদের অংশগ্রহণের উন্নতির জন্য পদক্ষেপ নিয়েছিলেন। সমাজের বিভিন্ন ক্ষেত্রে জেন্ডার সমতাকে উন্নীত করতে সচেষ্ট হয়েছিলেন।

বঙ্গবন্ধুর বৈদেশিক নীতি অন্যান্য দেশের সাথে সুসম্পর্ক স্থাপন এবং আঞ্চলিক সহযোগিতার প্রসারের উপর দৃষ্টি নিবদ্ধ করেছিল। তিনি জোট নিরপেক্ষ আন্দোলনে সক্রিয়ভাবে অংশগ্রহণ করেছিলেন এবং বাংলাদেশের জন্য আন্তর্জাতিক কূটনৈতিক স্বীকৃতি ও সমর্থন চেয়েছিলেন।

বঙ্গবন্ধু জাতীয় ঐক্য এবং বাঙালি সংস্কৃতি, ভাষা ও ঐতিহ্য সংরক্ষণের ওপর গুরুত্বারোপ করেন । তিনি বাংলাদেশের মানুষের মধ্যে একটি শক্তিশালী জাতীয় পরিচয় ও গর্ব গড়ে তুলতে চেয়েছিলেন।

বঙ্গবন্ধু ছিলেন বিশ্ব শান্তি ও নিরস্ত্রীকরণের বলিষ্ঠ প্রবক্তা। তিনি অস্ত্র প্রতিযোগিতা এবং পারমাণবিক অস্ত্র বিস্তার বন্ধ করার আহ্বান জানিয়েছিলেন, যুদ্ধের হুমকি থেকে মুক্ত বিশ্বের পক্ষে কথা বলেন।

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের "সোনার বাংলা" গড়ার স্বপ্ন ছিল একটি সমৃদ্ধ, আত্মনির্ভরশীল ও ন্যায়ভিত্তিক বাংলাদেশ। তিনি তার নেতৃত্বের সময় এই দৃষ্টিভঙ্গি প্রকাশ করেছিলেন এবং সদ্য স্বাধীন দেশকে একটি আদর্শ সমাজে রূপান্তর করতে চেয়েছিলেন যেখানে মানুষ মর্যাদা, স্বাধীনতা এবং সমৃদ্ধির সাথে বসবাস করতে পারে।

বঙ্গবন্ধু “সোনার বাংলা” গড়ার জন্য তার ভিশনের ভিত্তি হিসেবে অর্থনৈতিক উন্নয়নের ওপর জোর দেন। তিনি এমন একটি অর্থনীতির কল্পনা করেছিলেন যা হবে স্বয়ংসম্পূর্ণ এবং নাগরিকদের মৌলিক চাহিদা পূরণে সক্ষম। তিনি দারিদ্র্য ও আয়ের বৈষম্য কমাতে, শিল্পায়নের প্রচারে এবং খাদ্য নিরাপত্তা ও অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধি নিশ্চিত করতে কৃষি খাতের উন্নয়নে বিশ্বাস করতেন ।

তিনি একটি ধর্মনিরপেক্ষ রাষ্ট্রের পক্ষ সমর্থন করেছিলেন যেখানে সকল ধর্মের মানুষ তাদের স্ব স্বধর্মীয় বিশ্বাস স্বাধীনভাবে এবং জোরালোভাবে পালন করতে পারে। তাঁর দৃষ্টিভঙ্গির লক্ষ্য ছিল দেশে ধর্মীয় সহনশীলতা ও অন্তর্ভুক্তি বজায় রাখা।

বঙ্গবন্ধুর স্বপ্ন ছিল উচ্চাকাঙ্খী এবং লক্ষ্য ছিল বাংলাদেশকে একটি আধুনিক, প্রগতিশীল ও স্বনির্ভর রাষ্ট্রে রূপান্তরিত করা।

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের নৃশংস হত্যাকাণ্ড বিভিন্ন তাৎপর্যপূর্ণ কারণে বাঙালি জাতির জন্য গভীর অনুশোচনার কারণ। বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ছিলেন বাংলাদেশের প্রতিষ্ঠাতা নেতা এবং দেশের স্বাধীনতার সংগ্রামে এবং একটি স্বাধীন জাতি হিসেবে এর প্রাথমিক বছরগুলোতে অগ্রণী ভূমিকা পালন করেন।

বাঙালির কল্যাণে তাঁর দূরদৃষ্টি, নেতৃত্ব এবং নিবেদন জাতির পরিচয় ও দিকনির্দেশনা গঠনে সহায়ক ভূমিকা পালন করেছিল। তাঁকে হত্যার ফলে বাঙালি জাতি একজন দূরদর্শী নেতা হারায় যিনি বাংলাদেশকে অগ্রগতি ও সমৃদ্ধির দিকে নিয়ে যাওয়ার ক্ষমতা দেখিয়েছিলেন।

বাংলাদেশের স্বাধীনতার জন্য বঙ্গবন্ধুর অটল অঙ্গীকার তাঁকে দীর্ঘমেয়াদে ও একাধিকবার কারাবরণ এবং ব্যক্তিগত আত্মত্যাগ করতে হয়েছিল। তিনি বছরের পর বছর সংগ্রাম ও প্রতিকূলতা সহ্য করে দেশের স্বাধীনতার জন্য আন্দোলন-সংগ্রাম করেছিলেন । তার নৃশংস হত্যাকাণ্ড বাঙালি জাতিরজীবনে একটি করুণ পরিণতি তৈরি করেছিল।বঙ্গবন্ধু তার জনগণ ও দেশের উন্নতির জন্য নিজেকে উৎসর্গ করেছিলেন ।

গণতান্ত্রিকভাবে নির্বাচিত একজন নেতাকে হত্যা গণতন্ত্রের নীতি এবং নির্বাচিত শাসনের পবিত্রতার প্রতি মারাত্মক আঘাত। এটি গণতান্ত্রিক প্রক্রিয়াকে ব্যাহত করে এবং জাতিকে রাজনৈতিক অস্থিতিশীলতার দীর্ঘ সময়ের মধ্যে নিমজ্জিত করে।

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে বাংলাদেশে ‘জাতির জনক’ বলা হয়। তাঁর স্মৃতি লালিত, বাঙালির হৃদয়ে তিনি বিশেষ স্থান করে নিয়েছেন। তার হত্যাকাণ্ড একটি গভীর ক্ষতি যা জাতি এখনও অনুভব করে, কারণ তিনি কোটি কোটিবাঙালির আশা-আকাঙ্খার প্রতিনিধিত্ব করেছেন।

যদিও বাংলাদেশ তার স্বাধীনতার পর থেকে উল্লেখযোগ্য অগ্রগতি করেছে, বঙ্গবন্ধুর নৃশংস হত্যাকাণ্ডের জন্য অনুশোচনা গণতন্ত্র ও মানবাধিকার রক্ষায় চ্যালেঞ্জ এবং এই ধরনের ট্র্যাজেডিতে ন্যায়বিচার ও জবাবদিহিতা নিশ্চিত করার প্রয়োজনীয়তার কথা স্মরণ করিয়ে দেয়।

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের কন্যা শেখ হাসিনার নেতৃত্বে অবাধ, স্বাধীন ও শান্তিপূর্ণনির্বাচনের মাধ্যমে বাংলাদেশে গণতান্ত্রিক শাসনব্যবস্থা ফিরে আসে । ১৯৯৬ সালে প্রধানমন্ত্রী নির্বাচিত হওয়ার পর থেকে শেখ হাসিনা একাধিকবার বাংলাদেশের সরকারের নেতৃত্বে রয়েছেন। তিনি দেশের রাজনৈতিক দৃশ্যপট গঠনে এবং বিভিন্ন উন্নয়নমূলক উদ্যোগ বাস্তবায়নে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেছেন।

বঙ্গবন্ধুর অবদান এবং একটি ঐক্যবদ্ধ ও সমৃদ্ধ বাংলাদেশের স্বপ্ন জাতির ইতিহাসে এক অমোঘ চিহ্ন রেখে গেছে। তার হত্যার পর তার কন্যা শেখ হাসিনা বঙ্গবন্ধুর স্বপ্ন পূরণে ও সোনার বাংলা গড়ে তুলতে নিরলসভাবে কাজ করে যাচ্ছেন। তিনি বাংলাদেশ ও বর্হিবিশ্বে একজন বিশিষ্ট রাজনৈতিক ব্যক্তিত্বে পরিণত হয়েছেন। বঙ্গবন্ধুর ভিশন ও লক্ষ্যকে এগিয়ে নিতে তিনি গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করছেন।বলা হয়ে থাকে বাংলাদেশকে তিনি উন্নয়নের রোল মডেলে পরিণত করেছেন।

১৯৭৫ সালের ১৫ই আগষ্ঠ বাঙালি জাতির জীবনে একমর্মন্তদ ঘটনা। এই দিনে হাজার বছরের শ্রেষ্ঠ বাঙালি জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান’র মর্মান্তিক হত্যাকাণ্ড সত্ত্বেও, দেশ স্বাধীনে ও জাতি গঠনে তাঁর অবদান দেশ ও দেশের বাইরে সন্মানের সাথে স্মরণ করা হয়।সকল অপশক্তিকে পরাভূত করে এবং শোককে শক্তিতে পরিণত করে বাঙালি জাতি উন্নয়ন ও অগ্রগতির দিকে এগিয়ে যাওয়ার অনুপ্রেরণা পায়। কারণ, একজন দূরদর্শী নেতা এবং “জাতির পিতা” হিসাবে বঙ্গবন্ধু দেশের অগ্রগতি ও উন্নয়নের জন্য বাঙালি জীবনে চিরন্তন বাতিঘর হয়ে আছেন ও থাকবেন।
ড. মতিউর রহমান: গবেষক ও উন্নয়নকর্মী।

Place your advertisement here
Place your advertisement here