• শুক্রবার ১২ জুলাই ২০২৪ ||

  • আষাঢ় ২৮ ১৪৩১

  • || ০৪ মুহররম ১৪৪৬

Find us in facebook

অতিরিক্ত চুল পড়ছে? দেখুন বন্ধের ঘরোয়া উপায়

– দৈনিক রংপুর নিউজ ডেস্ক –

প্রকাশিত: ৫ জুন ২০২৪  

Find us in facebook

Find us in facebook

নারী-পুরুষ সবাই চুলপড়া সমস্যায় ভোগেন। অতিরিক্ত চুল পড়া সত্যিই চিন্তার বিষয়। চুল পড়তে পড়তে অনেকের মাথায় টাক পড়ে যায়।

চুল পড়া বন্ধ করার জন্য নানা কিছু ব্যবহার করেও সমাধান পাচ্ছেন না অনেকে। চুল একবার পড়তে শুরু করলে যেন বন্ধ হওয়ার নামেই থাকে না। বেশি চুল পড়লে সৌন্দর্য তো কমেই, সেইসঙ্গে এটি হতে পারে শারীরিক কোনো সমস্যার লক্ষণও।


তবে চুল পড়া বন্ধ করার জন্য বাজার থেকে কিনে আনা কেমিক্যালযুক্ত পণ্যের বদলে ব্যবহার করুন ঘরোয়া উপাদান। জেনে নিন চুল পড়া বন্ধ করার ঘরোয়া উপায়-


গরম তেল ম্যাসেজ: চুল পড়া বন্ধ করার সবচেয়ে কার্যকরী  ঘরোয়া প্রতিকার  হল গরম তেল দিয়ে আপনার মাথার ত্বকে মালিশ করা। এটি করার জন্য, বাদাম বা নারকেল তেল গরম করুন এবং এটি দিয়ে মাথার ত্বকে ম্যাসাজ করুন। এইভাবে, আপনি চুলের ফলিকলগুলিতে রক্ত ​​​​প্রবাহ বাড়ান, স্ট্র্যান্ডের শিকড়ের শক্তি বৃদ্ধি করে এবং মাথার ত্বককে কন্ডিশনার করে।


অ্যালোভেরা: চুল পড়ার জন্য সবচেয়ে প্রচলিত ঘরোয়া প্রতিকারের মধ্যেও অ্যালোভেরা অন্যতম। উপাখ্যানমূলক প্রমাণ দেখায় যে এটি মাথার ত্বককে প্রশমিত করে, চুলকে কন্ডিশনার করে, চুলের ফলিকলগুলো খুলে দেয় এবং খুশকি কমায়। অ্যালোভেরার সঙ্গে চুলে কন্ডিশনার এবং শ্যাম্পু ব্যবহার করার পাশাপাশি আপনি মাথার ত্বকে অ্যালোভেরা জেল লাগাতে পারেন।


পেঁয়াজের রস: পেঁয়াজের রস চুলের বৃদ্ধিকে উন্নীত করার সময় প্যাচি অ্যালোপেসিয়া এরিয়াটার চিকিৎসা করতে পারে। তাছাড়া এই রস রক্ত ​​চলাচলের উন্নতি ঘটাতে পারে। এই চুল পড়ার দ্রবণটি ব্যবহার করতে  , পেঁয়াজ ব্লেন্ড করে রস ছেঁকে নিন। এটি চুল এবং মাথার ত্বকে প্রয়োগ করুন এবং ধোয়ার আগে ১৫ মিনিটের জন্য রেখে দিন। একটি শ্যাম্পু দিয়ে এই চিকিৎসা অনুসরণ করুন।


আমলা: আপনার মাথার ত্বকে শুকনো আমলা পাউডার বা আমলা তেল ব্যবহার করে একটি পেস্ট তৈরি করা  প্রাকৃতিকভাবে চুল পড়া কমানোর আরেকটি টিপস। আমলা অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট এবং ভিটামিন সি সমৃদ্ধ, যা আপনার চুল গজাতে সাহায্য করে।


সবুজ চা: উচ্চ অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট মাত্রার কারনে গ্রিন টি চুল পড়ার একটি চমৎকার সমাধান। এই সমাধানটি ব্যবহার করতে, গ্রিন টি তৈরি করুন এবং আপনার মাথার ত্বকে এটি প্রয়োগ করার আগে এটি ঠান্ডা হতে দিন। এটি কমপক্ষে এক ঘন্টা বসতে দিন এবং পরে ধুয়ে ফেলুন।


মেথি: সঙ্গে সঙ্গে চুল পড়া বন্ধ করতেও মেথি ব্যবহার করতে পারেন। এটি করার জন্য, মেথি বীজ সারারাত পরিষ্কার পানিতে ভিজিয়ে রাখুন এবং সকালে পেস্টে ব্লেন্ড করুন। ৩০ মিনিট পরে ওঠার আগে এই পেস্টটি আপনার চুল এবং মাথার ত্বকে লাগান।


নারকেল তেল: নারকেল তেলে রয়েছে লরিক অ্যাসিড, এক ধরনের ফ্যাটি অ্যাসিড, যা চুলের শ্যাফটে প্রবেশ করে, প্রোটিনের ক্ষতি কমায়। এছাড়াও, গবেষণায় দেখা গেছে যে নারকেল তেল মাথার ত্বকের মাইক্রোবায়োমকে সমৃদ্ধ করে, চুলের ফলিকল এবং মাথার ত্বকের স্বাস্থ্যের উন্নতি করে। এই  চুল পড়া ট্রিটমেন্ট ভালো কাজ করে যখন ধোয়ার আগে কয়েক ঘন্টা বা রাতারাতি লিভ-ইন ট্রিটমেন্ট হিসেবে ব্যবহার করা হয়। তবুও আপনি এটি মাথার ত্বকে ম্যাসাজ করতে পারেন।


আলুর রস: আলুর রস চুলের গোড়ায় লাগিয়ে কিছুক্ষণ ম্যাসাজ করে অপেক্ষা করুন। আধা ঘণ্টা পর কুসুম গরম পানি ও শ্যাম্পু দিয়ে ধুয়ে ফেলুন।


নিম পাতা: ১০-১২টি নিমপাতা ও পরিমাণমতো নারিকেল তেল নিন। এবার নিমপাতা বেটে রস বের করে নিন। সেই রসটুকু নারিকেল তেলের সঙ্গে মিশিয়ে মাথার ত্বক ও চুলে মাখুন। এভাবে অপেক্ষা করুন আধা ঘণ্টার মতো। এরপর ধুয়ে নেবেন। নিমপাতা মাথার ত্বকে অ্যান্টি ব্যাকটেরিয়াল উপাদান হিসেবে কাজ করবে। নারিকেল তেল ছাড়াও অলিভ অয়েল বা আমন্ড অয়েল মিশিয়ে ব্যবহার করতে পারবেন। নিয়মিত ব্যবহারে চুল পড়া বন্ধ হবে, আপনি পাবেন কাঙ্ক্ষিত চুল।

Place your advertisement here
Place your advertisement here