• শুক্রবার   ১৯ আগস্ট ২০২২ ||

  • ভাদ্র ৩ ১৪২৯

  • || ২০ মুহররম ১৪৪৪

Find us in facebook
সর্বশেষ:
আমাদের বিচার চাইতেও বাধা দেওয়া হয়েছে: প্রধানমন্ত্রী ত্রিভুজ প্রেমের কারণে জীবন দিতে হলো সানজিদাকে: পুলিশ জামানতবিহীন গুচ্ছভিত্তিক ঋণ দেওয়ার নির্দেশ একদিনে ৮ কোটি ডলার বিক্রি করল বাংলাদেশ ব্যাংক কমতে পারে জ্বালানি তেলের দাম

দিনাজপুরে গুদাম থেকে ৫১২৪ টন চাল জব্দ, ম্যানেজার কারাগারে

– দৈনিক রংপুর নিউজ ডেস্ক –

প্রকাশিত: ৩ জুন ২০২২  

Find us in facebook

Find us in facebook

দিনাজপুরে স্কয়ার ফুড অ্যান্ড বেভারেজ লিমিটেড রাইস মিলের গুদামে অনুমোদনের চেয়ে প্রায় ৫ হাজার মেট্রিক টন চাল বেশি মজুত করার অভিযোগ উঠেছে। গত মঙ্গলবার (৩১ মে) সন্ধ্যা থেকে মধ্যরাত পর্যন্ত অভিযান চাালিয়ে গুদামে মজুতকৃত ৫ হাজার ১২৪ মেট্রিক টন সুগন্ধি আতপ চাল জব্দ করা হয়েছে।

এ ঘটনায় মিলের ম্যানেজার জায়েদ হোসেনকে আটক করা হয়। মামলা দায়েরের পর তাকে বুধবার (১ জুন) দুপুরে আদালতের মাধ্যমে কারাগারে পাঠানো হয়েছে।   

দিনাজপুর সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ও ভ্রাম্যমাণ আদালতের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মর্তুজা আল মঈদ এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

অভিযোগ সূত্রে জানা যায় ,গোপন সংবাদের ভিত্তিতে গত মঙ্গলবার সন্ধ্যা ৬টায় দিনাজপুরের সদরের চেহেলগাজী ইউনিয়নের গোপালগঞ্জ বাজারে স্কয়ার ফুড অ্যান্ড বেভারেজের মিলে অভিযান পরিচালনা করা হয়। এ সময় কাগজপত্র ও মিলে চাল মজুতের হিসাব চাওয়া হলে মিলের ইনচার্জ ম্যানেজার জায়েদ হোসেন সময়ক্ষেপণ করতে থাকেন। মিলের ছয়টি গুদামে ৫ হাজার ১২৪ টন আতপ চাল পাওয়া যায়। যার আনুমানিক বাজার মূল্য প্রায় ৪০ কোটি ৯৯ লাখ ৬২ হাজার ৪০০ টাকা। তবে মিলে ৩১২ মেট্রিক টন চাল মজুতের অনুমোদন রয়েছে। সে হিসাবে মিলে বেশি মজুত ছিল ৪ হাজার ৮১২ টনেরও বেশি চাল। পরে রাত আড়াইটার দিকে মিলের ছয়টি গুদামে রাখা চাল সদর উপজেলা খাদ্য নিয়ন্ত্রকের জিম্মায় দিয়ে দেওয়া হয়।

দিনাজপুরের কোতোয়ালি থানা পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোজাফ্ফর হোসেন বলেন, সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা অভিযান চলাকালে মিলের ম্যানেজার জায়েদ হোসেনকে পুলিশের কাছে সোপর্দ করেন। স্কয়ার কোম্পানিতে অবৈধভাবে চাল মজুতের ব্যাপারে একটি অভিযোগ এসেছে। সেটা আমরা মামলা হিসেবে নিয়েছি। মামলায় অভিযুক্ত ম্যানেজার জায়েদ হোসেনকে গ্রেপ্তার দেখিয়ে বুধবার দুপুরে আদালতের মাধ্যমে কারাগারে পাঠানো হয়েছে।

এ বিষয়ে দিনাজপুর জেলা খাদ্য নিয়ন্ত্রক মো. কামাল হোসেন বলেন, এটি একটি চলমান প্রক্রিয়া। জেলার বেশ কয়েকটি উপজেলায় এ অভিযান পরিচালনা করা হচ্ছে। আজকে এখন পর্যন্ত  কোনো অভিযান পরিচালনা করা হয়নি।

Place your advertisement here
Place your advertisement here