• বুধবার   ১৯ জানুয়ারি ২০২২ ||

  • মাঘ ৬ ১৪২৮

  • || ১৪ জমাদিউস সানি ১৪৪৩

Find us in facebook
সর্বশেষ:
সেবা নিতে এসে কোনো মানুষ যেন হয়রানির শিকার না হন- ডিসি সম্মেলনে প্রধানমন্ত্রী ‘শীতার্ত মানুষের কষ্ট লাঘবে পদক্ষেপ নিয়েছে সরকার’ দিনাজপুরে বইছে শৈত্যপ্রবাহ ডিমলায় পঞ্চম শ্রেণির ছাত্রীকে ধর্ষণ, যুবক আটক বিরলে ট্রাক্টরের ধাক্কায় পল্লি চিকিৎসক নিহত

টাঙ্গাইলে আশ্রয়ণ প্রকল্পের সদস্যরা পাবেন ১৫ কেজি করে চাল

– দৈনিক রংপুর নিউজ ডেস্ক –

প্রকাশিত: ৫ আগস্ট ২০২১  

Find us in facebook

Find us in facebook

বিভিন্ন পত্রিকায় সংবাদ প্রকাশের পর টাঙ্গাইলে আশ্রয়ণ প্রকল্পের সদস্যদের মাঝে ৩০ টন চাল বরাদ্দ দিয়েছেন জেলা ত্রাণ ও পুনর্বাসন কর্মকর্তা। এর আগে বিভিন্ন অনলাইনে ‘প্রধানমন্ত্রীর দয়ায় পাকা দালান পাইছি, কিন্তু সরকারি সাহায্য পাই না’ শিরোনামে সংবাদটি প্রকাশ করা হয়।

এই বিষয়টি টাঙ্গাইলের জেলা প্রশাসক ড. মো. আতাউল গনির নজরে এলে জেলার ১২ উপজেলার দুই হাজার পরিবারের মাঝে ১৫ কেজি করে চাল বরাদ্দ দেওয়া হয়েছে। দ্রুত সময়ের মধ্যে বরাদ্দকৃত চাল বিতরণ করা হবে।

এ ছাড়া আশ্রয়ণ প্রকল্পের জমিসহ ঘরপ্রাপ্তদের স্থায়ী ঠিকানা হিসেবে ভোটার তালিকায় অন্তর্ভুক্তি ও জাতীয় পরিচয়পত্র সংশোধনের জন্য সংশ্লিষ্ট উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তাদের চিঠি দেওয়া হয়েছে।
 
জেলা প্রশাসক কার্যালয় সূত্র জানা যায়, আশ্রয়ণ প্রকল্প ২-এর আওতায় প্রধানমন্ত্রীর উপহার প্রথম পর্যায়ে টাঙ্গাইলের ১২ উপজেলায় এক হাজার ১৭৪টি ও দ্বিতীয় পর্যায়ে এক হাজার ১৩০টি ঘর ভূমিহীনদের মাঝে হস্তান্তর করা হয়।

জেলা ত্রাণ ও পুনর্বাসন কার্যালয় সূত্রে জানা যায়, টাঙ্গাইল সদর উপজেলায় ৪৯০ পরিবারের জন্য সাত হাজার ৩৫০ কেজি, ধনবাড়ীতে ১৪৭ পরিবারের জন্য দুই হাজার ২০৫ কেজি, মধুপুরে ২১২ পরিবারের জন্য তিন হাজার ১৮০ কেজি, গোপালপুরে ১৪৮ পরিবারের মধ্যে দুই হাজার ২২০ কেজি, ভূঞাপুরে ১২০ পরিবারের জন্য এক হাজার ৮০০ কেজি, ঘাটাইলে ২৭৩ পরিবারের জন্য চার হাজার ৯৫ কেজি, কালিহাতীতে ১৫৫ পরিবারের জন্য দুই হাজার ৩২৫ কেজি, নাগরপুরে ৬৯ পরিবারের জন্য এক হাজার ৩৫ কেজি, দেলদুয়ারে ২০ পরিবারের জন্য ৩০০ কেজি, মির্জাপুরে ২৬১ পরিবারের জন্য তিন হাজার ৯১৫ কেজি, সখিপুরে ৬৭ পরিবারের জন্য এক হাজার ৫ কেজি, বাসাইলে ৩৮ পরিবারের জন্য ৫৭০ কেজি চাল বরাদ্দ দেওয়া হয়েছে।

টাঙ্গাইলের জেলা প্রশাসক ড. মো. আতাউল গনি জানান, আশ্রয়ণ প্রকল্পের সদস্যরা সংশ্লিষ্ট ঠিকানায় ভোটার বা জাতীয় পরিচয়পত্র না থাকায় স্থানীয় জনপ্রতিনিধিরা তাদের সরকারি সহযোগিতা থেকে বঞ্চিত করছিলেন। বিষয়টি জেলা প্রশাসনের নজরে আসার পর তাৎক্ষণিকভাবে ইউএনওদের সংশ্লিষ্ট ঠিকানায় ভোটার ও জাতীয় পরিচয়পত্র সংশোধনের জন্য চিঠি দেওয়া হয়েছে।

এ ছাড়া আশ্রয়ণ প্রকল্পের প্রত্যেক পরিবারকে ১৫ কেজি করে ৩০ টন চাল বরাদ্দ দেওয়া হয়েছে। একই সঙ্গে আশ্রয়ণের প্রকল্পের অধিবাসীরা সরকারের সব সুবিধা যাতে পায় তার জন্য ইউনিএনও ও স্থানীয় জনপ্রতিনিধিদের নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে বলেও জানান তিনি।

Place your advertisement here
Place your advertisement here