ব্রেকিং:
প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নির্দেশ অনুসরণ করে করোনা রোগীদের জন্য প্রয়োজনীয় চিকিৎসা সামগ্রী হিসেবে বাংলাদেশ যুক্তরাষ্ট্রের তৈরি ২৫০টি ভেন্টিলেটর সংগ্রহ করেছে
  • সোমবার   ২৬ জুলাই ২০২১ ||

  • শ্রাবণ ১০ ১৪২৮

  • || ১৪ জ্বিলহজ্জ ১৪৪২

Find us in facebook
সর্বশেষ:
জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের ভর্তি আবেদন শুরু ২৮ জুলাই ফেসবুক ও হোয়াটসঅ্যাপের বিকল্প আসছে বাংলাদেশে সরকারি চাকুরেদের সম্পদের হিসাব দিতে হবে, বিধিমালা কার্যকরে উদ্যোগ দেশের মানুষের পুষ্টি নিরাপত্তায় হচ্ছে পুষ্টি বাগান পশুর নাড়ি-ভুঁড়ি রফতানি করে বছরে আয় ৩২০ কোটি টাকা

স্মৃতির ক্যানভাসে মাটির ঘর 

– দৈনিক রংপুর নিউজ ডেস্ক –

প্রকাশিত: ১২ জুন ২০২১  

Find us in facebook

Find us in facebook

স্মৃতির ক্যানভাসে প্রায়ই চলে আসে মাটির ঘরের চিত্র। আজ যেন সবই স্মৃতি। এক সময় রংপুরের বদরগঞ্জে গ্রামীণ ঐতিহ্যের প্রতীক মাটির ঘর দেখা যেত। একটা সময়ে গ্রামগঞ্জের ঐতিহ্যবাহী পরিবারগুলো অনেকটা শখ আর পরিবারের সামাজিক মর্যাদাকে প্রতিষ্ঠিত করতে মাটি দিয়ে নির্মাণ করতেন মাটির ঘর ও দোতলা বাড়ি।

জানা গেছে, দোতলাবিশিষ্ট বাড়ির ওপরের তলায় অনেকে পরিবার নিয়ে বসবাস করতেন। আর নিচতলায় থাকত কাচারিঘর। আর সেখানে অতিথিশালায় চলত গ্রামের মানুষদের নানাবিধ সমস্যার সমাধানসহ বিচারিক কাজ। উপজেলার প্রবীণ ব্যক্তিদের সঙ্গে কথা বলে মাটির দোতলা বাড়ি তৈরির নেপথ্যে কয়েকটি কারণ জানা যায়।

তা হলো—সামাজিক মর্যাদা বাড়ানো, জীবজন্তুর ভয়, প্রকৃতির নির্ভেজাল হাওয়ায় বসবাস করা আর শখের বশবর্তী হওয়া।

সরেজমিনে অনেক খোঁজাখুঁজির পর বদরগঞ্জ উপজেলার রামনাথপুর ইউপির রামকৃষ্ণপুর বানিয়াপাড়া নামক গ্রামে গিয়ে চোখে পড়ে মাটির দোতলা বাড়ি। কাছে গিয়ে দেখা যায়, পরিত্যক্ত ও ভঙ্গুরদশা নিয়ে ঠায় দাঁড়িয়ে আছে। আর ঐ বাড়িটি যেন বলছে, আধুনিক এ যুগে আমার কদর না থাকলেও এক সময় আমিই ছিলাম সবার সেরা।

কথা হয় মাটির দোতলা বাড়ির উত্তরসূরি অ্যাডভোকেট আরমানুজ্জামান সরকার জামান জানান, আমার দাদার পিতা মরহুম ফারাজ উদ্দিন সরকার এই মাটির দোতলা বাড়িটি তৈরি করেছিলেন অনেকটা শখের বশে, কমপক্ষে ৯০ বছর আগে। তিনি জানান, গরমের দিনে মাটির ঘরে বসবাস অত্যন্ত আরামদায়ক। বাতাসের জন্য ইলেকট্রিক ফ্যানের কোনো প্রয়োজন নেই। এ বাড়িতে এখন আর কেউ থাকেন না।

বদরগঞ্জ উপজেলার রামনাথপুর ইউপির সাবেক চেয়ারম্যান মহিউদ্দিন প্রামাণিক (৮৯) জানান, আগে আমাদের এ অঞ্চলটি বনজঙ্গলে ঘেরা ছিল। মানুষ অনেকটা জীবজন্তুর ভয়ে মাটির দোতলা বাড়ি তৈরি করে বাস করত। আমি ছোটবেলা থেকে আমাদের অঞ্চলে অনেক মাটির দোতলা ঘর দেখেছি। কিন্তু সময়ের সঙ্গে সঙ্গে ইট-সুড়কির সহজলভ্যতায় পুরোনো সেই মাটির দোতলা ঘর ভেঙে দালানবাড়ি তৈরি করা হচ্ছে।

বদরগঞ্জ মহিলা ডিগ্রি কলেজের অধ্যক্ষ বিমলেন্দু সরকার জানান, ছোটবেলা থেকে আমাদের এ অঞ্চলে অনেক মাটির দোতলা বাড়ি দেখেছি। কিন্তু এখন আর চোখে পড়ে না। আমাদের এ গ্রামীণ ঐতিহ্যকে তো আমাদেরই সংরক্ষণ করতে হবে। অন্যথায় নতুন প্রজন্ম, মাটি দিয়ে তৈরি দোতলা বাড়ি যে এক সময় নির্মিত হতো, তা তারা জানতেই পারবে না।

Place your advertisement here
Place your advertisement here