• বুধবার   ০১ ডিসেম্বর ২০২১ ||

  • অগ্রাহায়ণ ১৬ ১৪২৮

  • || ২৪ রবিউস সানি ১৪৪৩

Find us in facebook
সর্বশেষ:
খালেদাকে বিদেশে যেতে আইনি প্রক্রিয়া মানতে হবে: পররাষ্ট্রমন্ত্রী ক্ষুদ্র উদ্যোক্তা ও কর্মসংস্থানে ১৫ কোটি ডলার ঋণ দিচ্ছে এডিবি মূল্যায়ন ও অগ্রগতিতে প্রথম গম ও ভুট্টা গবেষণা ইনস্টিটিউট এনবিআর উন্নয়ন কর্মসূচি বাস্তবায়নে নিরলস কাজ করছে: প্রধানমন্ত্রী বাংলাদেশের সম্ভাবনাময় খাতে বিনিয়োগ করবে তুরস্ক

শান্তিরক্ষীদের সুরক্ষা নিশ্চিতের বিষয়টি জাতিসংঘে তুলে ধরল ফাতিমা

– দৈনিক রংপুর নিউজ ডেস্ক –

প্রকাশিত: ১৬ অক্টোবর ২০২০  

Find us in facebook

Find us in facebook

সংঘাত থেকে মানুষকে রক্ষা ও মহামারির মতো অপ্রত্যাশিত চ্যালেঞ্জ মোকাবিলা করার ক্ষেত্রে শান্তিরক্ষীদের অবদানের স্বীকৃতি জানিয়ে তাদের সুরক্ষা ও নিরাপত্তার বিষয়টি পুনর্ব্যক্ত করেছেন জাতিসংঘে নিযুক্ত বাংলাদেশের স্থায়ী প্রতিনিধি ও রাষ্ট্রদূত রাবাব ফাতিমা। শুক্রবার ঢাকায় প্রাপ্ত এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, জাতিসংঘ সদরদফতরে চলমান ৭৫তম সাধারণ পরিষদের চতুর্থ কমিটির সাধারণ বিতর্কে প্রদত্ত বক্তব্যে এ কথা বলেন তিনি।

বিদ্যমান ঝুঁকি ও মহামারির মতো অপ্রত্যাশিত জরুরি পরিস্থিতিসহ শান্তিরক্ষীরা প্রতিনিয়ত যেসব চ্যালেঞ্জ মোকাবিলা করছেন তা সুনির্দিষ্টভাবে উল্লেখ করে এক্ষেত্রে পর্যাপ্ত নিরাপত্তা প্রস্তুতি গ্রহণের আহ্বান জানান রাষ্ট্রদূত ফাতিমা। মাঠ পর্যায়ে শান্তিরক্ষীদের সুরক্ষার জন্য জাতিসংঘ গৃহীত ‘অ্যাডাপ্ট অ্যান্ড অ্যাডজাস্ট’ শীর্ষক পদক্ষেপটির প্রশংসাও করেন তিনি।

রাষ্ট্রদূত ফাতিমা টেকসই শান্তি নিশ্চিত ও ‘শান্তিরক্ষা কার্যক্রম’ কে সাবলিল গতিতে শান্তি বিনির্মাণ কার্যক্রমে উন্নীত করতে মাঠ পর্যায়সহ শান্তিরক্ষা কার্যক্রমের উচ্চতর পদগুলোয় নারী শান্তিরক্ষীদের পদায়ন আরো বৃদ্ধি করার প্রয়োজনীয়তার কথা তুলে ধরেন।

করোনার মধ্যেও জাতিসংঘের বিশেষ রাজনৈতিক মিশনগুলো তাদের কর্মকাণ্ড চালিয়ে যাওয়ায় সন্তোষ প্রকাশ করেন বাংলাদেশের স্থায়ী প্রতিনিধি। তবে, বাস্তুচ্যুত রোহিঙ্গাদের উপর নৃশংসতার মূল কারণ খুঁজে বের করে তা সমাধান করা এবং রোহিঙ্গাদের নিজ বাসভূমি মিয়ানমারে স্থায়ী প্রত্যাবাসন নিশ্চিত করার ক্ষেত্রে দেশটিতে নিযুক্ত জাতিসংঘ মহাসচিবের বিশেষ দূতের বৃহত্তর ও শক্তিশালী প্রচেষ্টা গ্রহণের প্রতি জোর দেন তিনি।

‘মহাকাশের শান্তিপূর্ণ ব্যবহার বিষয়ক কমিটি (কোপিউয়াস)’ এর আওতায় গৃহীত ‘স্পেস-২০৩০’ এজেন্ডাটির প্রশংসা করেন রাষ্ট্রদূত ফাতিমা। মহাকাশে বাংলাদেশের প্রথম স্যাটেলাইট ‘বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট-১’ এর কথা উল্লেখ করে তিনি মহাকাশ-প্রযুক্তি ও এই সংশ্লিষ্ট প্রয়োগিক বিষয়গুলোয় সক্ষমতা বিনির্মাণে বাংলাদেশের বিশেষ প্রয়োজনীয়তার কথা তুলে ধরেন।

Place your advertisement here
Place your advertisement here