ব্রেকিং:
দেশে করোনাভাইরাসে গত ২৪ ঘণ্টায় আরো ৫০ জনের মৃত্যু হয়েছে। এ নিয়ে মোট মারা গেলেন ৩ হাজার ২৩৪ জন। এছাড়া নতুন করে আক্রান্ত হয়েছেন এক হাজার ৯১৮ জন। এ নিয়ে মোট আক্রান্তের সংখ্যা ২ লাখ ৪৪ হাজার ২০ জন। রংপুর সিটি করপোরেশনের (রসিক) মেয়র মোস্তাফিজার রহমান ও তাঁর স্ত্রী জেলী রহমানের করোনা ভাইরাসের সংক্রমণ শনাক্ত হয়েছে।
  • বুধবার   ০৫ আগস্ট ২০২০ ||

  • শ্রাবণ ২০ ১৪২৭

  • || ১৫ জ্বিলহজ্জ ১৪৪১

Find us in facebook
সর্বশেষ:
রাষ্ট্রনায়ক ও বিশ্ব গণমাধ্যমের চোখে বঙ্গবন্ধু বন্যার্তদের পাশে নেই কুড়িগ্রাম বিএনপি ‘রাজধানীর বিদ্যুতের লাইন পর্যায়ক্রমে আন্ডারগ্রাউন্ডে চলে যাবে’ ফুলবাড়ীতে বিদ্যুৎস্পৃষ্টে যুবকের মৃত্যু বর্জ্য ব্যবস্থাপনায় সিটি কর্পোরেশনগুলো সফল : এলজিআরডি মন্ত্রী
৬৫

লালমনিরহাট জেলা বিএনপির সাংগঠনিক তৎপরতা শূন্যের কোঠায় 

– দৈনিক রংপুর নিউজ ডেস্ক –

প্রকাশিত: ২ আগস্ট ২০২০  

Find us in facebook

Find us in facebook

অভ্যন্তরীণ কোন্দল আর একক নেতৃত্বের কারণে লালমনিরহাট জেলা বিএনপির সাংগঠনিক তৎপরতা আজ শূন্যের কোঠায়। অভিযোগ উঠেছে, জেলা বিএনপির সভাপতি অধ্যক্ষ আসাদুল হাবিব দুলু ও সাধারণ সম্পাদক হাফিজুর রহমান বাবলার দ্বন্দ্বে হতাশাগ্রস্ত হয়ে দিন দিন নিষ্ক্রিয় হয়ে পড়ছেন তৃণমূলের শতশত নেতাকর্মী। 


জানা গেছে, জেলা বিএনপির সভাপতি বছরের বেশিরভাগ সময় ঢাকায় অবস্থান করেন। কদাচিৎ বাড়িতে ফিরলেও পরিবারিক কাজ মিটিয়ে ও মনপুত কয়েকজন নেতার সঙ্গে কথা বলে তৃণমূলের খোঁজ-খবর না নিয়েই যথারীতি ঢাকায় ফিরে যান তিনি। 

এদিকে, জেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক এলাকায় থাকলেও প্রকাশ্যে আসেন না। এর মূল কারণ হলো বাবলা ও দুলুর দ্বন্দ্ব। আর এ দ্বন্দ্বের বলি হচ্ছেন তৃণমূলের শতশত নেতাকর্মী।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক একাধিক তৃণমূল নেতা বলেন, অভ্যন্তরীণ কোন্দলের কারণে সদ্য প্রয়াত জেলা বিএনপির সিনিয়র নেতা (হারাটি ইউপির সাবেক চেয়ারম্যান) মোহাম্মদ আলী খাঁন, সাপ্টিবাড়ির আব্দুল মান্নান (হুরকা মান্নান), সোহরাব হোসেন, দুর্গাপুরের সাবেক চেয়ারম্যান বীর মুক্তিযোদ্ধা ফিরোজুর রহমান নান্নুসহ ফ্রন্টলাইনের নেতারা দল ছেড়ে চলে গেছেন। তাদের মতামতের কোনো মূল্য দেয়া হয় না। যে কারণে তারা দল ছেড়ে অন্য দলে যোগ দিচ্ছেন।

তারা আরো বলেন, নির্বাচনের আগ মুহূর্তে কারাগারে যাওয়ার পর সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক তো দূরের কথা, বিএনপির কোনো নেতাই তৃণমূল নেতাকর্মীদের খোঁজখবর নেন না।

কণ্ঠে হতাশার সুর নিয়ে তারা আরো বলেন, লালমনিরহাট জেলা বিএনপিকে বাঁচিয়ে রাখতে হলে এসব আত্মকেন্দ্রিক নেতাকর্মীদের ব্যাপারে উদাসীন এবং পদলোভী নেতাদের পরিবর্তনের বিকল্প নেই। অন্যথায় নিঃশেষ হতে চলা স্থানীয় বিএনপির অস্তিত্ব সামনের দিনগুলোতে হাতড়িয়েও খুঁজে পাওয়া যাবে না।

স্থানীয় বিএনপির দুর্বলতা, বিভিন্ন অভিযোগসহ নানা বিষয়ে জানতে চাইলে জেলা বিএনপি সভাপতি অধ্যক্ষ আসাদুল হাবিব দুলু বলেন, কেন্দ্র থেকে নির্দেশ না পাওয়ায় জেলা উপজেলা কমিটি গঠনের জন্য কোনো নির্দেশনা বা সম্মলনের বিষয়ে পরামর্শ দিতে পারছেন না। কমিটি হলে সমস্যাগুলো শিগগিরই সমাধান হবে।

Place your advertisement here
Place your advertisement here
রংপুর বিভাগ বিভাগের পাঠকপ্রিয় খবর