ব্রেকিং:
কুড়িগ্রামে জেএমবি কর্তৃক ধর্মান্তরিত মুক্তিযোদ্ধা হোসেন আলী হত্যা মামলার সাক্ষ্য গ্রহন অনুষ্ঠিত দিনাজপুরে বিপুল উৎসাহ উদ্দীপনায় বেকারী মালিক সমিতির নির্বাচন সম্পন্ন সৈয়দপুরে তিন দিনব্যাপী জাতীয় লাইট ইঞ্জিনিয়ারিং পণ্য ও প্রযুক্তি মেলার শুরু সৈয়দপুর বিমানবন্দরে জোরপূর্বক প্রবেশের চেষ্টাকালে তিন যুবক গ্রেফতার সালমান শাহ পারিবারিক কলহে আত্মহত্যা করেছেন : পিবিআই

সোমবার   ২৪ ফেব্রুয়ারি ২০২০   ফাল্গুন ১২ ১৪২৬   ২৯ জমাদিউস সানি ১৪৪১

Find us in facebook
সর্বশেষ:
জাতীয় পতাকার সম্মান রক্ষার্থে সশস্ত্র বাহিনীর সদস্যদের সর্বোচ্চ ত্যাগ স্বীকার করতে প্রস্তুত থাকার আহ্বান জানিয়েছেন রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ। ঠাকুরগাঁওয়ের বালিয়াডাঙ্গী উপজেলায় অজ্ঞাত রোগে আক্রান্ত হয়ে দুই দিনে একই পরিবারের দুইজনের মৃত্যু লালমনিরহাটে ট্রাক্টরের ধাক্কায় খাইরুল ইসলাম খোকা (২০) নামে এক মোটরসাইকেল আরোহী নিহত করোনা আতঙ্ক: ইরানের সঙ্গে সীমান্ত বন্ধ করলো তুরস্ক ও পাকিস্তান উন্নয়ন পরিকল্পনা একে অপরের পরিপূরক হতে হবে: প্রধানমন্ত্রী
২১১

বদরগঞ্জে বালতির পানিতে ডুবে শিশুর মৃত্যু

দৈনিক রংপুর

প্রকাশিত: ৩১ জুলাই ২০১৯  

Find us in facebook

Find us in facebook

রংপুরের বদরগঞ্জে গোসলখানায় রাখা পানিভর্তি বালতিতে ডুবে আড়াই বছর বয়সী এক শিশুর মৃত্যু হয়েছে। মঙ্গলবার দুপুরে বালতির পানিতে ডুবে আকাশ রহমান নামে শিশুটির মৃত্যু হয়।

মৃত আকাশ বদরগঞ্জ উপজেলার দামোদরপুর ইউনিয়নের শেখেরহাট পাঠানপাড়া গ্রামের কৃষক মমেদুল ইসলাম ও আরজিনা বেগমের সন্তান।

প্রতিবেশীদের সূত্রে জানা গেছে, আরজিনা বেগম কাপড় পরিষ্কারের জন্য গোসলখানায় বড় একটা বালতিতে পানি ভর্তি করে রাখেন। এরপর তিনি বাইরে অন্য কাজে ব্যস্ত হয়ে পড়েন। শিশুটি তখন একাই বাড়ির আঙিনায় খেলছিল। কিছু সময় পর আরজিনা খেয়াল করেন আকাশ আঙিনায় নেই। তখন শুরু হয় খোঁজাখুঁজি।

প্রতিবেশীরাও আকাশকে খুঁজতে থাকেন। কিন্তু কোথাও মিলল না শিশুটির খোঁজ। পরে মা আরজিনা বেগমই গোসলখানায় ঢুকে দেখতে পান আকাশ বালতির পানিতে ডুবে আছে। তার চিৎকারে উপস্থিত লোকজন বুঝতে পেরেছে ছোট্ট দেহে প্রাণ নেই। তবুও দ্রুতগতিতে নেওয়া হয় বদরগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে।

স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের চিকিৎসক জিয়াউল হক বলেন, হাসপাতালে আনার অনেক আগেই শিশুটি মারা গেছে।

মঙ্গলবার বিকেলে দেখা যায়, আকাশের মরদেহ দাফনের প্রস্তুতি চলছে। তার ছোট্ট দেহটি সাদা কাফনে মুড়িয়ে রাখা ছিল বাড়ির বারান্দায়। মা আরজিনা বেগম থেমে থেমে ডুকরে কাঁদছিলেন। বলছিলেন, ‘আল্লাহ আমাকে না নিয়ে তুই আমার সোনাটাকে নিয়ে গেলি কেন? অপরাধ করেছি আমি, ও তো করেনি। কোথায় আমার সোনা, ওকে আমার বুকে এনে দাও। ওকে ছাড়া আমি বাঁচব না।’

– দৈনিক রংপুর নিউজ ডেস্ক –
Place your advertisement here
Place your advertisement here
এই বিভাগের আরো খবর