ব্রেকিং:
করোনা পরিস্থিতিতে দেশের মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক পর্যায়ের সব শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের চলমান ছুটি আগামী ৩০ জুন পর্যন্ত বৃদ্ধি করা হয়েছে
  • রোববার   ১৩ জুন ২০২১ ||

  • জ্যৈষ্ঠ ২৯ ১৪২৮

  • || ০১ জ্বিলকদ ১৪৪২

Find us in facebook
সর্বশেষ:
সম্মিলিত প্রচেষ্টায় দেশ থেকে শিশুশ্রম নিরসন সম্ভব- প্রধানমন্ত্রী করোনা আপডেট: গত ২৪ ঘণ্টায় দেশে আরও ৩৯ জনের মৃত্যু, শনাক্ত ১৬৩৭ ৩০ জুন পর্যন্ত বাড়লো শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের ছুটি `উদোর পিণ্ডি বুধোর ঘাড়ে চাপানো বিএনপির পুরনো অভ্যাস` মিঠাপুকুরে করলাক্ষেতে ভাইরাসজনিত পাতা মোড়ানো রোগ দেখা দিয়েছে

দিনাজপুরের লিচুর বাগানগুলোতে থোকায় থোকায় সবুজ লিচু ঝুলছে  

– দৈনিক রংপুর নিউজ ডেস্ক –

প্রকাশিত: ১১ মে ২০২১  

Find us in facebook

Find us in facebook

সারা দেশেই দিনাজপুরের লিচুর কদর আলাদা। দিনাজপুরের লিচুর নাম শুনলেই মুখে জল এসে যায়। জেলার লিচুর বাগানগুলোতে থোকায় থোকায় সবুজ লিচু ঝুলছে। আগামী ১৫ দিন পর থেকেই সবুজ লিচু রঙ্গিন হতে শুরু করবে, লিচু খাওয়ার উপযোগী হবে। তবে এ বছর গত বছরের তুলনায় লিচু উৎপাদন তুলনামূলক কম। প্রাকৃতিক দুর্যোগ খরার কারণে অনেক লিচুরই মুকুল অবস্থায় ঝরে পড়ে যায়। আবার দেশব্যাপি করোনার কারণে বাজার নিয়েও শঙ্কা রয়েছে। ফলে এখন থেকেই চিন্তার ভাঁজ পড়েছে লিচু চাষি ও বাগানিদের মাথায়। 

লিচুর ফলনে বিপর্যয়ের কারণ হিসেবে কৃষিবিদরা বলছেন, শীতকালে নাইট্রোজেনের পরিমাণ কম ছিল। এ কারণে গাছে ফুল না ধরে কচি পাতা বের হয়েছে। একইসঙ্গে লিচু গাছে মাত্রাতিরিক্ত হরমোন ও রাসায়নিক সার প্রয়োগের ফলে গাছের উৎপাদন ক্ষমতা ক্রমশই হ্রাস পাচ্ছে বলেও তারা জানিয়েছেন। 

দিনাজপুর হর্টিকালচার সেন্টারের উপ পরিচালক প্রতীপ কুমার গুহ বলেন, জেলায় এ বছর সাড়ে পাঁচ হাজার হেক্টর জমিতে লিচুর বাগান রয়েছে। সেখানে গাছ রয়েছে সাত লাখের ওপরে। যা থেকে গত বছরে ৩৫ হাজার মেট্রিক টন লিচুর ফলন হয়েছিল। চলতি বছর লিচু উৎপাদনের লক্ষ্যমাত্র ধরা হয়েছে ৪০ হাজার মেট্রিক টন। তবে এ বছর লক্ষ্যমাত্রা নিয়ে শঙ্কা রয়েছে। প্রতি বছর এই জেলায় ৪০০ থেকে সাড়ে ৪০০ কোটি টাকার বেশি লিচু বেচাকেনা হয়। 

জেলায় যেসব লিচু আবাদ হয় তার মধ্যে বোম্বাই, মাদ্রাজি, চায়না থ্রি, চায়না টু, কাঠালি, বেদানাসহ বিভিন্ন জাতের লিচুর আবাদ হয়। তার মধ্যে বেশি আবাদ হয় বোম্বাই ও মাদ্রাজি জাতের লিচু। চলতি বছরে এই দুই জাতের লিচু কম। 

দিনাজপুর সদর উপজেলার মাসিমপুর এলাকার বাগানী মোসাদ্দেক হোসেন বলেন, আমার বাগানে গত বছর ১০ লাখ লিচু পেয়েছিলাম। এ বছর ছয় লাখও পাবো কিনা সন্দেহ আছে। আমার মনে হয় এ বছর ফলন কম হওয়ার কারণ মূলত আবহাওয়া। এ বছর শেষের দিকে প্রচুর কুয়াশা হয়েছে। যার কারণে যে সময় মুকুল ফুটে বের হওয়ার কথা, তখন বের হয়েছে নতুন পাতা।
মাসিমপুরের লিচু চাষি মোশাররফ হোসেন বলেন, প্রাকৃতিক দুর্যোগ আমার মতো লিচু বাগানি যারা আছে তারা ব্যাপকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। এ বছর লাভবান হওয়ার সুযোগ খুবই কম। কারণ আমরা যে খরচ করি, যেমন পাহারাদার, লোকজন রাখা, গাছ থেকে লিচু নামানোর খরচ, তার সবটা মিলিয়ে লোকশান না হলেও আশা করছি গায়ে গায়ে যাবে। জানি না এ বছরের বাজার কেমন হবে। ভালো হতে পারে আবার খারাপও হতে পারে।

দিনাজপুর সদর উপজেলার পশ্চিম শিবরামপুর এলাকার শরিফুল ইসলাম বলেন, আমার বাগানে ১৮০টি গাছ আছে। গত বছর ৪০টি গাছে ফল আসেনি। আর এ বছর ৭০টি গাছে ফল আসেনি। গত বার লিচু খুব ভালো হয়েছিল। এ বছর কুয়াশা বেশি, তাই ফলন কম। গত বছর ফলন দেখে আমি বাগান কিনছি। এ বছরের ফলনের জন্য ভালোমত পরিচর্যা করেছি। আমি বাগানে ফলের জন্য খুবই চেষ্টা করেছি। কিন্তু এ বছর ফলন নাই। যা ফল দেখছি এতে করে ভাগ্যে যা আছে, যা হয় হবে।

বিরলের ধুকুরঝাড়ী এলাকার লিচু চাষি রশিদুল ইসলাম বলেন, গত কয়েক বছর ধরেই একটু লোকসানের মধ্যে আছি। দুই বছরে লিচুর মৌসুমে রোজার মাস পড়েছিল, আর গত বছর ছিল করোনা। এবারে করোনা তো আছেই। আবার মুকুলও কম এসেছে। তাই লাভের আশা এবার ছেড়ে দিয়েছি। পরিচর্যা যতটুকু না করলেই নয় ততটুকু করছি। কারণ অব্যাহত লোকসানে আর আশা ভর করছে না।
দিনাজপুর হর্টিকালচার সেন্টারের উপপরিচালক কৃষিবিদ প্রদীপ কুমার গুহ বলেন, এ বছর আবহাওয়ার তারতম্যের কারণে লিচু ফলনে কিছুটা বিপর্যয় হয়েছে। লিচু উৎপাদনের লক্ষ্যমাত্রা অনুযায়ী ফলন হবে না বলে মনে করছেন সংশ্লিষ্টরা। বর্তমানে দিনাজপুরের লিচু বাগানগুলোতে পুষ্পমঞ্জুরী থেকে ফল আসতে শুরু করেছে। দিনাজপুরে যেসব জাতের লিচুর চাষ হয়, তার মধ্যে বোম্বাই জাতের লিচুই আছে ৫০ শতাংশের বেশি। এই জাতটিতে তুলনামূলক পুষ্পমঞ্জুরি কম। আসেনি এবার আশানুরূপ ফল।

তিনি বলেন, ফলন না আসার কারণগুলোর মধ্যে সাধারণত আমরা যেগুলো উল্লেখ করতে পারি তা হলো আবহাওয়া। আবার তার পাশাপাশি গাছের পরিচর্যার বিষয়টিও আছে। গাছের ফলন অনেকটা নির্ভর করে আবহাওয়ার ওপর। গত মৌসুমে শীতের মাত্রাটি ছিল ভিন্ন। মাঝে মাঝে ঠাণ্ডা পড়েছে, আবার মাঝে মাঝে স্বাভাবিক তাপমাত্রায় এসেছে। ধারাবাহিকভাবে শীত না থাকায় কার্বন ও নাইট্রোজেন রেশিও কমবেশি হয়েছে। এই রেশিওতে যদি নাইট্রোজেনের পরিমাণ বেশি হয়ে যায়। অর্থাৎ তাপমাত্রা যদি বেশি হয়ে যায়, সে ক্ষেত্রে গাছ বেশি পরিমাণ খাদ্যগ্রহণ করে থাকে। এতে করে গাছে পুষ্পমঞ্জুরি না এসে গজাবে কচি পাতা।

Place your advertisement here
Place your advertisement here