ব্রেকিং:
করোনা পরিস্থিতিতে দেশের মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক পর্যায়ের সব শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের চলমান ছুটি আগামী ৩০ জুন পর্যন্ত বৃদ্ধি করা হয়েছে
  • রোববার   ১৩ জুন ২০২১ ||

  • জ্যৈষ্ঠ ২৯ ১৪২৮

  • || ০১ জ্বিলকদ ১৪৪২

Find us in facebook
সর্বশেষ:
সম্মিলিত প্রচেষ্টায় দেশ থেকে শিশুশ্রম নিরসন সম্ভব- প্রধানমন্ত্রী করোনা আপডেট: গত ২৪ ঘণ্টায় দেশে আরও ৩৯ জনের মৃত্যু, শনাক্ত ১৬৩৭ ৩০ জুন পর্যন্ত বাড়লো শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের ছুটি `উদোর পিণ্ডি বুধোর ঘাড়ে চাপানো বিএনপির পুরনো অভ্যাস` মিঠাপুকুরে করলাক্ষেতে ভাইরাসজনিত পাতা মোড়ানো রোগ দেখা দিয়েছে

গঙ্গাচড়ায় খোঁজ মিলেছে পালিয়ে যাওয়া করোনায় আক্রান্ত এক রোগীর

– দৈনিক রংপুর নিউজ ডেস্ক –

প্রকাশিত: ২০ মে ২০২১  

Find us in facebook

Find us in facebook

রংপুরের গঙ্গাচড়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স থেকে পালিয়ে যাওয়া ষষ্ঠী চন্দ্র দেবনাথ (৩৫) নামে করোনায় আক্রান্ত এক রোগীর খোঁজ মিলেছে। প্রায় ৮ ঘণ্টা আত্মগোপনে থাকার পর তিনি বাড়ি ফিরেছেন। বর্তমানে তাকে নিজ বাড়িতেই আইসোলেশনে রাখা হয়েছে। ষষ্ঠী চন্দ্র উপজেলার কোলকোন্দ ইউনিয়নের বেদপাড়া গ্রামের উত্তম চন্দ্র দেবনাথের ছেলে।

বৃহস্পতিবার (২০ মে) বিকেলে গঙ্গাচড়া উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা আসিফ ফেরদৌস এ তথ্য নিশ্চিত করেন। করোনা আক্রান্ত ষষ্ঠী চন্দ্র বর্তমানে আইসোলেশনে থেকে সুস্থ রয়েছেন।

পুলিশ ও স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স সূত্রে জানা গেছে, সোমবার (১৭ মে) থেকে করোনাভাইরাসের উপসর্গ নিয়ে অসুস্থ ছিলেন ষষ্ঠী চন্দ্র। বুধবার সকালে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে তার নমুনা পরীক্ষা করা হয়। পরে অসুস্থতা বাড়লে তাকে সেখানকার করোনা ইউনিটে ভর্তি করা হয়। ওইদিন বিকেলে ষষ্ঠী চন্দ্রের নমুনা পরীক্ষায় করোনা পজিটিভ রিপোর্ট আসে।

করোনায় আক্রান্ত হওয়ার বিষয়টি জানতে পেরে ভয়ে আতঙ্কিত হন ষষ্ঠী চন্দ্র। তিনি কাউকে কিছু না জানিয়ে চিকিৎসক ও কর্তব্যরতদের ফাঁকি দিয়ে রাতে স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স থেকে পালিয়ে যান। ঘটনাটি জানতে পেরে পুলিশ বাড়িসহ বিভিন্ন স্থানে খোঁজ করেও ষষ্ঠী চন্দ্রের কোনো সন্ধান পায়নি।

গঙ্গাচড়া মডেল থানা পুলিশের সহকারী উপপরিদর্শক (এএসআই) শরিফুল ইসলাম জানান, অনেক খোঁজাখুঁজি করে ষষ্ঠী চন্দ্রের সন্ধান না পেয়ে পুলিশের পক্ষ থেকে তার পরিবারের লোকজনের সঙ্গে যোগাযোগ করা হয়। পালিয়ে না থেকে পরিবারে নয়তো হাসপাতালে ফিরে আসার ব্যাপারে পরিবারের লোকজনদের বোঝানো হয়।

তিনি আরও বলেন, বুধবার ভোর রাতে পরিবারের লোকেরা ষষ্ঠীর অবস্থান নিশ্চিত হয়ে তাকে বুঝিয়ে বাড়িতে নিয়ে আসেন। বর্তমানে তাকে বাড়িতেই আইসোলেশনে রাখা হয়েছে।

উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা আসিফ ফেরদৌস জানান, করোনাভীতি থেকে ষষ্ঠী চন্দ্র দেবনাথ হাসপাতাল থেকে পালিয়েছিলেন। পরে পরিবারের লোকজন তাকে বুঝিয়ে বাড়িতে এনেছেন।

Place your advertisement here
Place your advertisement here