ব্রেকিং:
রংপুর মেডিকেল কলেজের (রমেক) পিসিআর ল্যাবে গত ২৪ ঘণ্টায় ১৮৮টি নমুনা পরীক্ষা করে ৩৫ জনের করোনা শনাক্ত হয়েছে। সোমবার রংপুর মেডিকেল কলেজের (রমেক) অধ্যক্ষ অধ্যাপক ডা. একেএম নুরুন্নবী লাইজু এসব তথ্য নিশ্চিত করে বলেন- রমেকের অণুজীব বিজ্ঞান বিভাগের পিসিআর ল্যাবে ১৮৮ জনের নমুনা পরীক্ষা করা হয়। এতে রংপুরে ২৫ জন, গাইবান্ধায় ৬, কুড়িগ্রামে ২ এবং লালমনিরহাটে ২ জনের নমুনায় করোনা শনাক্ত হয়। দেশে করোনাভাইরাসে গত ২৪ ঘণ্টায় আরো ৩৯ জনের মৃত্যু হয়েছে। এ নিয়ে মোট মারা গেলেন ২ হাজার ৩৯১ জন। এছাড়া নতুন করে আক্রান্ত হয়েছেন ৩ হাজার ৯৯ জন। এ নিয়ে মোট আক্রান্তের সংখ্যা ১ লাখ ৮৬ হাজার ৮৯৪ জন।
  • মঙ্গলবার   ১৪ জুলাই ২০২০ ||

  • আষাঢ় ২৯ ১৪২৭

  • || ২৩ জ্বিলকদ ১৪৪১

Find us in facebook
সর্বশেষ:
রংপুরে চিকিৎসাধীন অবস্থায় করোনা আক্রান্ত মুক্তিযোদ্ধার মৃত্যু অনুমতি দেয়া পাঁচ বেসরকারি হাসপাতাল ও ডায়াগনস্টিক সেন্টারের কোভিড-১৯ পরীক্ষা স্থগিত রাখার নির্দেশ দিয়েছে স্বাস্থ্য অধিদফতর ২০২০ সালে নিবন্ধিত হজযাত্রীদের জন্য ৮ নির্দেশনা দিয়েছে ধর্ম মন্ত্রণালয় বন্যার সার্বিক পরিস্থিতি সার্বক্ষণিকভাবে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা খোজ খবর নিচ্ছেন-পানিসম্পদ উপমন্ত্রী মানবদেহে কোভিড ভ্যাকসিনের সফল প্রয়োগের দাবি রাশিয়ার!
১০৭

গঙ্গাচড়ায় ক্ষুদ্র ও প্রান্তিক চাষীদের মাঝে বীজ ও সার বিতরণ

– দৈনিক রংপুর নিউজ ডেস্ক –

প্রকাশিত: ১৪ নভেম্বর ২০১৯  

Find us in facebook

Find us in facebook

রংপুরের গঙ্গাচড়য় কৃষি প্রণোদনা কর্মসূচী (২০১৯-২০) এর আওতায় ক্ষুদ্র ও প্রান্তিক চাষীদের মাঝে বীজ ও সার বিতরণ করা হয়েছে। আজ বুধবার এ উপলক্ষে গঙ্গাচড়া কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের আয়োজনে ও উপজেলা প্রশাসনের সহযোগিতায় অফির্সাস কল্যাণ ক্লাবে আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়। উপজেলা নির্বাহী অফিসার তাসলীমা বেগমের সভাপতিত্বে ও কৃষি সম্প্রসারণ অফিসার নাঈম মোর্শেদের সঞ্চালনায় সভায় বক্তব্য রাখেন, উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান সাজু আহম্মেদ লাল। স্বাগত বক্তব্য রাখেন, উপজেলা কৃষি অফিসার শরিফুল ইসলাম। এ সময় অতিরিক্ত কৃষি অফিসার শাহনাজ পারভীন, উদ্ভিদ সংরক্ষণ অফিসার হাবিবুর রহমানসহ উপসহকারী কৃষি অফিসারবৃন্দ ও সুবিধাভোগী কৃষকগণ উপস্থিত ছিলেন।

কৃষি অফিস সূত্রে জানা যায়, উপজেলার ৯টি ইউনিয়নের ৭৫০ জনের প্রত্যেকে ১ কেজি সরিষা, ভূট্টা ১২৩০ জনের প্রত্যেকে ২ কেজি, পেঁয়াজ ২০ জনের প্রত্যেকে ১ কেজি, গম ৬৫০ জনের প্রত্যেকে ২০ কেজি, সূর্যমুখী ১০ জনের প্রত্যেকে দেড় কেজি, শীতকালীন মূগ ৫০ জনের প্রত্যেকে ৫ কেজি ও গ্রীস্মকালীন মুগ ১০০ জনের প্রত্যেকে ৫ কেজি করে বীজ কৃষকের মাঝে পর্যায়ক্রমে বিতরণ করা হবে। এছাড়া শীত ও গ্রীস্মকালীন মুগের জন্য প্রত্যেকে ১০ কেজি ডিএপি ও ১০ কেজি এমওপি সার এবং অন্যান্য বীজের জন্য প্রত্যেকে ২০ কেজি ডিএপি ও ১০ কেজি এমওপি সার দেওয়া হবে।

Place your advertisement here
Place your advertisement here
রংপুর বিভাগের পাঠকপ্রিয় খবর