সোমবার   ০৯ ডিসেম্বর ২০১৯   অগ্রাহায়ণ ২৪ ১৪২৬   ১১ রবিউস সানি ১৪৪১

Find us in facebook
১১০

কুয়াশাচ্ছন্ন কুড়িগ্রাম জনপদ, হিম বাতাসে বাড়ছে ঠাণ্ডার তীব্রতাও

প্রকাশিত: ২ ডিসেম্বর ২০১৯  

ডিসেম্বরের প্রথম সপ্তাহ থেকেই দেশের উত্তরাঞ্চলের কুড়িগ্রামে শীতের আগমনী বার্তা শুরু হয়েছে। বিকেলে শুরু হওয়ার সঙ্গে সঙ্গে ঠাণ্ডার প্রকোপও শুরু হয়ে যায়। সেই সঙ্গে নামে কুয়াশা। নেমে আসা ঘন কুয়াশা সকাল ৮টা পর্যন্ত এখানকার জনপদকে কুয়াশাচ্ছন্ন করছে। এর সাথে মাঝেমধ্যে হিম বাতাস বয়ে যাচ্ছে। হিম বাতাসে ঠাণ্ডার তীব্রতাও বাড়ছে। বৃদ্ধ ও শিশুদের ঠাণ্ডাজনিত রোগে আক্রান্ত করবে এই আশঙ্কা তাদের।

বৃদ্ধা বুলবুলি বিবি জানান, ‘ঠাণ্ডা হামাক কাবু করছে। হামার বেটা ঠাণ্ডায় ঘর থাকি বাইরাত বেরবার দেয় না। তাই ঘরত শুইয়া আছি। জ্বর, কাশ হবার ভয়ে হামরাও ঘরতেই শুইয়া আছি। তবে বেশিক্ষণ বিছনাত শুইয়া থাকতে কষ্ট হয় হামার।

বাসিন্দা সিরাজুল ইসলাম জানান, কুড়িগ্রামে বরাবরেই ঠাণ্ডা বেশি হয়। এই ঠাণ্ডা মোকাবেলার জন্য পুরনো কাপড়ের দোকান থেকে মোটা কাপড় কেনার চেষ্টা করছেন। পুরনো কাপড়ের দোকানে মোটা কাপড়ের মূল্য কম বলেই তার এই চেষ্টা।

আব্দুল মোত্তালেব জানান, এবার কুড়িগ্রামে ঠান্ডার তীব্রতা বাড়বে বলেই ঠান্ডা নিবারণে তিনি পুরান কাপড়ের দোকানে এসেছেন। পুরান কাপড়ের দোকান থেকে তিনি তার বৃদ্ধ মায়ের জন্য মোটাকাপড় কিনবেন বলে জানান।  

পুরনো কাপড় ব্যবসায়ী আব্দুর রহিম জানান, গতবারের চেয়ে এবার ঠাণ্ডা বেশি। তাই ঠাণ্ডায় তার পুরনো কাপড়ের দোকানে মোটা কাপড়ের পরিমাণ বৃদ্ধি করেছেন। ক্রেতার ভিড় বেড়ে যাওয়ায় এ পর্যন্ত তিনি সাতটি পুরনো কাপড়ের বস্তা খুলে বিক্রি শুরু করেছেন।

ব্যবসায়ী ওবায়দুল হক জানান, এবার কুড়িগ্রামে ঠাণ্ডা বাড়বে জেনে আমরা পর্যাপ্ত পরিমাণ মোটা কাপড় বিক্রির জন্য এনেছি। এখানে নিম্ন ও মধ্যবিত্তরা সাধ্য অনুযায়ী মোটা কাপড় কিনছেন। 

অপর ব্যবসায়ী আব্দুল মান্নান জানান, ঠাণ্ডার মোকাবেলায় অল্প পয়সার মানুষের মোটা কাপড় কেনার জন্য তিনি উন্মুক্তস্থানে পুরনো কাপড়ের দোকান দিয়েছেন। পাশাপাশি নিজেও সেলাই মেশিন বসিয়ে তৈরি করছেন ঠাণ্ডার কাপড়। চাহিদামতো মানুষ মোটা কাপড় কেনার চেষ্টা করছে।

কুড়িগ্রাম রাজারহাট আবহাওয়া পর্যবেক্ষণাগারের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা সুবল চন্দ্র সরকার জানান, এবার কুড়িগ্রামে ঠাণ্ডার প্রকোপ বাড়ার সম্ভাবনা রয়েছে। সোমবার দেশের সর্বনিম্ন তাপমাত্রা কুড়িগ্রামে বিরাজ করেছে। সোমবার সকালে কুড়িগ্রামের রাজারহাটে সর্বনিম্ন তাপমাত্রা ১২.৩ ডিগ্রি সেলসিয়াস রেকর্ড করা হয়েছে। ডিসেম্বর মাসের শেষের দিকে কুড়িগ্রামে একটি শৈত্যপ্রবাহও বয়ে যেতে পারে।

এ ব্যাপারে কুড়িগ্রাম ডিসি সুলতানা পারভীন জানান, কুড়িগ্রামে এখনও পুরোদমে ঠাণ্ডা শুরু হয়নি। তবে কুড়িগ্রামের ঠাণ্ডা মোকাবিলায় আগাম প্রস্তুতি নেয়া হয়েছে। এখানে অর্থসহ সব কিছুই সংরক্ষিত রয়েছে। ঠাণ্ডা মোকাবেলায় যা প্রয়োজন হবে তা ব্যয় করা হবে।

– দৈনিক রংপুর নিউজ ডেস্ক –
Place your advertisement here
Place your advertisement here
এই বিভাগের আরো খবর