ব্রেকিং:
আবরার হত্যার শুনানি ফের পেছালো চট্টগ্রাম প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের (চুয়েট) কম্পিউটার প্রকৌশল বিভাগের চতুর্থ বর্ষের তাহমিদ চৌধুরী মারা গেছেন ইএফটির আওতায় আসছে সরকারি চাকরিজীবীদের বেতন-ভাতা এটিএম জালিয়াতি রোধে উন্নতমানের এটিএম মেশিন উদ্ভাবন করোনা শনাক্তে বাংলাদেশকে ৫০০ উন্নত কিট দেবে চীন

সোমবার   ১৭ ফেব্রুয়ারি ২০২০   ফাল্গুন ৫ ১৪২৬   ২২ জমাদিউস সানি ১৪৪১

Find us in facebook
সর্বশেষ:
উপজেলা নির্বাহী অফিসারদের (ইউএনও) মাধ্যমে রাজাকারদের তালিকা তৈরির উদ্যোগ নিয়েছে সরকার স্বাস্থ্য পরীক্ষা করাতে রমেকে ভর্তি চীনা নাগরিক চসিক নির্বাচন, বগুড়া-১ ও যশোর-৬ আসনে উপনির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে আগামী ২৯ মার্চ পররাষ্ট্রমন্ত্রী ও প্রতিমন্ত্রীর সঙ্গে আলজেরিয়ার রাষ্ট্রদূতের সাক্ষাৎ ফেলানী হত্যা মামলার পরবর্তী শুনানী ১৮ মার্চ
৭৯

একজন চিকিৎসক দিয়েই চলছে বার্ন ও প্লাস্টিক সার্জারি বিভাগ

– দৈনিক রংপুর নিউজ ডেস্ক –

প্রকাশিত: ২৪ জানুয়ারি ২০২০  

Find us in facebook

Find us in facebook

একজন চিকিৎসক দিয়ে চলছে রংপুর মেডিকেল কলেজ (রমেক) হাসপাতালের বার্ন ও প্লাস্টিক সার্জারি বিভাগ। সাতজন চিকিৎসক থাকার কথা থাকলেও আছে মাত্র একজন চিকিৎসক। পর্যাপ্ত চিকিৎসক না থাকায় বর্তমানে বিভাগটি শিক্ষানবিশদের দিয়েই চলছে। এ পরিস্থিতিতে রংপুর বিভাগের বিভিন্ন জেলা থেকে দগ্ধ রোগীরা প্রতিদিন চিকিৎসা নিতে এসে চিকিৎসক না পেয়ে ফিরে যেতে হচ্ছে। এতে রোগীদের চরম দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে। 

সরেজমিনে হাসপাতালে গিয়ে দেখা গেছে, পুরুষ, মহিলা ও শিশুদের সেবা দেয়ার জন্য বার্ন ও প্লাস্টিক সার্জারি বিভাগে একজনই চিকিৎসক রয়েছেন। কিছু শিক্ষানবিশ চিকিৎসক আর নার্সরাই সেবা দিচ্ছেন রোগীদের। তবে একজন চিকিৎসকের পক্ষে রোগীদের ভিড় সামলাতে হিমশিম খেতে হচ্ছে। এ নিয়ে রোগীদের অভিযোগও রয়েছে বিস্তর।

রমেক হাসপাতালে সেবা নিতে আসা আম্বিয়া খাতুন নামে একজন বলেন, গত দুদিন ধরে হাসপাতালে আসছি। চিকিৎসক নেই। তাই আজ আবার এসেছি। লম্বা লাইনে দাঁড়িয়ে আছি। জানি না আজও চিকিৎসকের সাক্ষাৎ পাবো কি না।

হাসপাতাল সূত্রে জানা গেছে, খাতা কলমে বার্ন ও প্লাস্টিক সার্জারি বিভাগের দায়িত্বে সাত চিকিৎসক থাকলেও শুধু বিভাগীয় প্রধান এম. এ হামিদ পলাশকেই দেখা যায়। 

বার্ন ইউনিটে রোগী ও তাদের স্বজনের জানান, বার্ন ইউনিটে ভালো সেবা নেই। চিকিৎসক নেই। চিকিৎসা খরচও অনেক। স্যালাইন ছাড়া হাসপাতাল থেকে আর কিছুই দেয়া হয় না। শিক্ষানবিশ চিকিৎসকরা এসে মাঝে মধ্যে খোঁজ-খবর নেন। 

চলতি শীত মৌসুমে এখন পর্যন্ত এ ইউনিটে ৮ নারী ও দুই শিশুসহ ১৩ জন মারা গেছেন। চিকিৎসাধীন আছেন ২৫ জন। রোগীরা কাঙ্খিত সেবা না পেয়ে রাজধানী ঢাকায় ছুটছেন। আর যাদের সাধ্য নেই তাদের দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে।  
 
তবে এ বিষয়ে কথা বলতে রাজি হননি বার্ন ইউনিটের বিভাগীয় প্রধান এম এ হামিদ পলাশ। তিনি বলেন, আমরা রোগীদের সেবা দেয়ার জন্য সব সময় কাজ করছি। এছাড়া হাসপাতালের পরিচালকের সঙ্গে ফোনে যোগাযোগ করা হলে তিনি মুঠোফোন রিসিভ করেননি।

– দৈনিক রংপুর নিউজ ডেস্ক –
Place your advertisement here
Place your advertisement here
এই বিভাগের আরো খবর